পুলিশের উপর বিশ্বাস হারিয়ে সিবিআই তদন্তের দাবি স্বরূপ গড়াই’য়ের পরিবারের

পুলিশের উপর বিশ্বাস হারিয়ে সিবিআই তদন্তের দাবি স্বরূপ গড়াই’য়ের পরিবারের

আমাদের ভারত, নানুর, ১১ সেপ্টেম্বর: পুলিশের উপর বিশ্বাস হারিয়ে স্বরূপ গড়াইয়ের মৃত্যুর সিবিআই তদন্তের দাবি করল মৃতের পরিবার। এদিন মৃতের ভাই অনুপ কুমার গড়াই বলেন, আমরা সিবিআই তদন্ত চাই। যারা আমার ভাইকে মেরেছে, তাদের ফাঁসি চাই। এরপর একরাশ ক্ষোভ উগড়ে দেন রাজ্য প্রশাসনের বিরুদ্ধে। তিনি বলেন, পুলিশের উপস্থিতিতে এই ঘটনা ঘটেছে। পুলিশ দুষ্কৃতীদের পাহাড়া দিয়ে নিয়ে আসছে। তারপর আমাদের উপর হামলা করা হয়েছে। পুলিশ একবার সামনে, একবার পিছনে। যখন কর্মীরা রুখে দাঁড়াচ্ছে, তখন পুলিশ সামনে চলে আসছে। আমরা ভাবছি, প্রশাসন চলে এসেছে আর কিছু হবে না। আবার সেই একই রকম এ্যটাক। আক্রান্ত দেহ আমি নিজেই পুলিশের হাতে তুলে দিই। বোলপুরে নিয়ে যান, ওখানে কোনও চিকিৎসা হয়নি। ওখান থেকে বর্ধমানে পাঠানো হয়, ওখানেও কোনও চিকিৎসা হয়নি। যার বুকে গুলি বিদ্ধ হয়ে আছে, তার কোনও চিকিৎসা হল না। ২৪ ঘন্টা পার হয়ে গিয়েছে, তারপর গুলি বের করা হয়েছে।

এদিন পাওয়া গেল নানুরে সংঘবদ্ধ আন্দোলনের পূর্বাভাষ। সবাই থেমেছিল মুসলিমদের শোকের উৎসবের জন্য। নানুর ক্ষোভে ফুঁসছে। তবে এদিন ছিল সংযত আন্দোলন। মৃত স্বরূপ গড়াইয়ের শবদেহ বাহী শকটের সামনে গ্রামের পথে কিছুটা পদযাত্রা। কোনও রাজনৈতিক শ্লোগান ছাড়াই। পিছনে পরিবারের লোকজন। আগে ও পিছনে পুলিশের কড়া প্রহরা। পুলিশি কড়া পাহাড়া নিয়ে এদিনও ক্ষোভ উগড়ে দেয় পরিবার। স্বরূপ গড়াইয়ের স্ত্রী সদ্য স্বামী হারা চায়না গড়াইয়ের মাথায় একমাথা সিঁদুর। কিছুক্ষণের মধ্যে তাঁর দেহে চড়বে বৈধব্যের পরিধেয় পোশাক। তখনও সমানে কেঁদে চলেছেন। সামনে বিজেপির জেলা সভাপতি শ্যামাপদ মণ্ডলকে দেখে হাতজোড় করে কান্না ভেজা গলায় বললেন, বিনাদোষে মারা গেল আমার স্বামী। দোষীদের ধরতে হবে। ওদের সাজা চাই। পুলিশ সাথে ছিল। আমার কি অবস্থা দেখতে পাচ্ছেন?

আশ্বাস দিয়ে শ্যামাপদ মণ্ডল বললেন, প্রতিনিয়ত কোলকাতা থেকে ফোন আসছে। আমরা আপনাদের পাশে আছি। পরিবারের নিয়ম অনুযায়ী পূর্ব বর্দ্ধমান জেলার কাটোয়ার উদ্ধারণপুর ঘাটে স্বরূপ গড়াইয়ের শেষ কৃত্য হবে।

মৃতের ভাই অনুপ কুমার গড়াই বলেন, তৃণমূলের দুষ্কৃতীরা ঘর ভেঙ্গে টাকা লুঠ করেছে। বাইরে যা ছিল পুরো তছনছ করে দিয়েছে। ওরা পুরো প্ল্যান মাফিক কাজ করেছে, কারণ এইভাবে ওরা বিজেপিকে আনতে দেবে না। বিজেপি যে করবে তাকে মেরে দেওয়া হবে। থুপসরা অঞ্চলের তৃণমূলের বড় বড় নেতা আছে। জড়িতদের নামে থানায় অভিযোগ জানানো হয়েছে। পুলিশ নিন্দাজনক কাজ করেছেন।
এনআরএসে আমাদের হাতে মৃতদেহ দেওয়া হয়নি। সেখান থেকে বডি লুকিয়ে বোলপুর হাসপাতালে নিয়ে চলে আসা হয়। আমরা খবর পাই বডি আছে হাসপাতালে। বাড়িতে নোটিশ পাঠানো হয়। আমার ভাই স্বরূপ গড়াই বিজেপির বুথ প্রেসিডেন্ট তাই তাকে মরতে হল। কি করেছিলাম আমরা। রাধাষ্টমীতে গোটা গ্রামের সাথে মহোৎসবে খেতে বসেছিলাম আমরা। সেই সময় পরিকল্পনা মাফিক আমাদের উপর আক্রমণ হয়। পুলিশের সামনেই সেটা হয়। আমার ভাইকে ওরা বাঁচতে দিল না চিকিৎসার অভাবে। মৃতদেহ নিয়েও আমাদের নাকানি চোবানি খাওয়ানো হল। কেন আমরা বিজেপি করি বলে? তখনও শ্লোগান শোনা যাচ্ছে নানুরের রামকৃষ্ণপুরে—“স্বরূপ গড়াইয়ের রক্ত, হতে দেব না ব্যর্থ।”

আগামী কয়েকদিনেই হয়তো জেলায় দেখা দেবে জোড়ালো আন্দোলন। বিজেপির জেলা সভাপতি শ্যামাপদ মণ্ডলের কথায় পাওয়া গেল তার আভাস।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

nine + eleven =

amaderbharat.com

Welcome To Amaderbharat.com, Get Latest Updated News. Please click I accept.