১৬ই অগাস্ট ‘খেলা হবে’ দিবস নিয়ে এবার সরব তথাগত রায়

বিশেষ সংবাদদাতা— বাঙালি হিন্দুর ইতিহাসে কালোদিন হিসাবে স্মরণীয় হয়ে আছে ১৬ আগস্ট তারিখটি। ১৯৪৬ খ্রিস্টাব্দের কলকাতায় একটি ভয়ংকর সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা ও নরহত্যার ঘটনা ঘটে। সেই ১৬ আগস্ট মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ‘খেলা হবে’ দিবস হবে বলে ঘোষণা করেছেন। বৃহস্পতিবার এ ব্যাপারে টুইটে মন্তব্য করলেন ত্রিপুরা ও মেঘালয়ের প্রাক্তন রাজ্যপাল তথাগত রায়।

তথাগতবাবু লিখেছেন, “১৬ই অগাস্ট নাকি ‘খেলা হবে’! দিনটি স্মরণীয়। ১৯৪৬ সালের এই দিন অবিভক্ত বাংলার শেষ ‘প্রধানমন্ত্রী’ হুসেন সোহরাওয়ার্দি একটি হিন্দুমেধ যজ্ঞের সূচনা করেছিলেন, তিনি ‘ডাইরেক্ট অ্যাকশন’ এর ডাক দিয়েছিলেন, যা ‘গ্রেট ক্যালকাটা কিলিংস’ নামে পরিচিত। হিন্দু-মুসলিম মিলে আনুমানিক পনেরো হাজার মানুষ খুন হয়।

প্রথমে ঠিক হয়েছিল হিন্দুনিধন হবে। পুলিশ এবং সেনা মোতায়েন হয়েছিল। ব্রিটিশ গভর্নর বারোজ সহযোগিতা করেন। পরে পাশা উল্টে যায় এবং সোহরাওয়ার্দি পিছু হঠতে বাধ্য হন। কিন্তু যে প্রশ্নটা রয়ে গেল, কেন এই দিনই বেছেছেন মাননীয়া?“

বিষয়টি নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে বিভিন্ন মহলে। তৃণমূলনেত্রীর এই ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে বুধবারই প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন বিজেপি-র রাজ্যসভার সদস্য স্বপন দাশগুপ্ত। তিনি টুইটে লিখেছেন, “মজার ব্যাপার, ওই দিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ‘খেলা হবে’ দিবস হবে বলে ঘোষণা করলেন। ১৯৪৬-এর ওই দিন মুসলিম লিগ ‘ডাইরেক্ট অ্যাকশন ডে’ এবং ‘দি গ্রেট ক্যালকাটা কিলিং’ শুরু করে। আজকের পশ্চিমবঙ্গে বিরোধীদের ওপর আক্রমণের বন্যা যেন ওই দিনের দ্যোতক হয়ে উঠেছে।“

বৃহস্পতিবার অপর একটি পোস্টে তথাগতবাবু লিখেছেন, “খেলা হবে, খেলা হবে! রাজ্য জুড়ে, ভারত জুড়ে খেলা হবে। শুধু খেলা নয়, ভাতা হবে। ভিক্ষা হবে। মোচ্ছব হবে। শুধু চাকরি হবে না।“

১৯৪৬-এর ওই দিন মুহাম্মদ আলী জিন্নাহ ভারতীয় মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষদের ‘প্রত্যক্ষ সংগ্রাম দিবস’ বা ‘ডাইরেক্ট অ্যাকশন ডে’ নামে দেশব্যাপী প্রতিবাদ মিছিলের ডাক দেন। দিনটি ছিল “দীর্ঘ ছুরিকার সপ্তাহ” নামে পরিচিত কুখ্যাত সপ্তাহকালের প্রথম দিন। দাঙ্গার পর কলকাতার রাজপথে ছড়িয়ে থাকা নিহতদের দেহ। স্বাধীনতার এক বছর পূর্বে ১৯৪৬ সালে কলকাতায় সংঘটিত এই দাঙ্গায় চার হাজারেরও বেশি নিরীহ হিন্দু ও মুসলমান নিহত হয়।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here