এশিয়ার দ্বিতীয় সর্ববৃহৎ শিবলিঙ্গ মন্দিরে শ্রাবণ মাসের সমস্ত অনুষ্ঠান বাতিল করল মন্দির কর্তৃপক্ষ

স্নেহাশীষ মুখার্জি ,আমাদের ভারত, নদীয়া, ৭ জুলাই:
যখন রাজ্য জুড়ে আনলক টু শুরু হতেই বিভিন্ন এলাকার মন্দির, মসজিদ খুলে যাচ্ছে তখন নদিয়ার শিবনিবাস মন্দির কর্তৃপক্ষ তাদের শ্রাবণ মাসের বড় উৎসব বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিল। দেশজুড়ে লাফিয়ে লাফিয়ে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ার পাশাপাশি রাজ্যেও আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। নদিয়া জেলাতেও আক্রান্তের সংখ্যা নেহাত কম নয়। তাই নিরাপত্তার কারণে মন্দির কর্তৃপক্ষ এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এশিয়ার দ্বিতীয় সর্ববৃহৎ শিবলিঙ্গ রয়েছে নদিয়ার মাজদিয়ার শিবনিবাস মন্দিরে। প্রায় আড়াই’শো বছরের প্রাচীন শিবনিবাসের এই শিবমন্দির প্রতিষ্ঠা করেছিলেন নদিয়ারাজ কৃষ্ণচন্দ্র। মন্দিরের সেবায়েত স্বপন ভট্টাচার্য বলেন, কথিত আছে বর্গী আক্রমণের ভয়ে একসময় রাজা কৃষ্ণচন্দ্রের রাজধানী ছিল এই শিবনিবাস। প্রতিবছর শ্রাবণ মাসের প্রতি সোমবার মন্দিরে লোক সমাগম হলেও শেষ দুটি সোমবার পূণ্যার্জনের জন্য দূর-দূরান্ত থেকে ভক্তরা এই শিবনিবাস মন্দিরেই আসেন।

শ্রাবণ মাসের শেষ দুটি সোমবারে হাজার হাজার ভক্ত নবদ্বীপে গঙ্গা থেকে জল নিয়ে বাঁকে করে পায়ে হেঁটে চল্লিশ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করেন। উপবাস থেকে শিবনিবাস মন্দিরের শিবলিঙ্গের মাথায় জল ঢালতে আসেন। মন্দিরের সেবায়েত স্বপন ভট্টাচার্য জানান, শ্রাবণ মাস শিব ঠাকুরের জন্ম মাস। সেই কারণে দূরদূরান্ত থেকে বাঁকে করে গঙ্গার জল নিয়ে এসে শিবঠাকুরের মাথা জল ঢালেন।

তিনি বলেন, ‘‘ভক্তদের দৃঢ় বিশ্বাস তাতে ভগবানের কৃপা লাভ হয়। এই মন্দির চত্বর জুড়ে বসে মেলাও। এই সময়ে মারণ রোগ করোনা যেভাবে গ্রাস করছে তাতে জমায়েত কোনো ভাবেই নিরাপদ নয়। সেই কথা ভেবেই ভক্তদের জমায়েত এড়াতে আমরা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি। তবে আমরা ভগবানের কাছে সকলেই প্রার্থনা করব তিনি এই করোনা থেকে সারা বিশ্বকে যেন মুক্তি দেন।’’

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here