বৃষ্টির জন্য হাসপাতালে ঢুকতে চাওয়ায় প্রসূতির পরিবারের সদস্যদের দিকে ছুটে এল গুলি, উত্তেজনা বনগাঁয়

আমাদের ভারত, বনগাঁ, ২৯ জুলাই: বৃষ্টিতে হাত থেকে বাঁচতে বেসরকারি হাসপাতালে ঢুকতে চেয়েছিলেন প্রসূতির পরিজনরা। কিন্তু তাদের বাধা দেওয়া হয়। এই নিয়ে কথা কাটাকাটির মাঝেই রোগীর পরিজনদের দিকে গুলি চালানোর অভিযোগ উঠল বেসরকারি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর ২৪ পরগনার বনগাঁ যশোর রোডের এক বেসরকারি হাসপাতালে। এই ঘটনার পর থেকে থমথমে গোটা এলাকা।

জানাগেছে, ওই বেসরকারি হাসপাতালে পূর্বপাড়ার বাসিন্দা ছবি কুণ্ডু নামে এক প্রসূতি ভর্তি রয়েছেন। মঙ্গলবার বিকেলে ওই নার্সিংহোমের সামনে তাঁর পরিজনরা দাঁড়িয়ে ছিলেন। আচমকাই বৃষ্টি নামে। বাধ্য হয়ে বৃষ্টি থেকে বাঁচতে হাসপাতালের ভিতরে ঢোকার চেষ্টা করেন তাঁরা। অভিযোগ, তাতে বাধা দেন নিরাপত্তারক্ষী। তাঁর দাবি, একজনের বেশি কাউকেই বেসরকারি হাসপাতালে ঢুকতে দেওয়া হবে না। সেকথা শোনার পর থেকেই রোগীর পরিজন এবং নিরাপত্তারক্ষীর মধ্যে বচসা বাধে। অভিযোগ, রোগীর আত্মীয়দের মারধরও করা হয়।

ওই প্রসূতির পরিবারের আরও অভিযোগ, সেই সময় ওই বেসরকারি হাসপাতালের অমিত নামে এক কর্মী ফোন করে বাইরে থেকে কয়েকজনকে ডাকেন। তারপরই বেশ কয়েকজন যুবক ঘটনাস্থলে পৌঁছয়। তিন রাউন্ড গুলি চালায় তারা। তবে বরাতজোরে বেঁচে যান প্রসূতির পরিবারের লোকজনেরা। পরে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় বনগাঁ থানার পুলিশ। ঘটনাস্থল থেকে বেশ কয়েকটি কার্তুজ উদ্ধার করা হয়েছে।

এব্যাপারে বিজেপি সাংসদ শান্তনু ঠাকুর বলেন, এমনিতেই রাজ্যের স্বাস্থ্য পরিষেবা ভেঙে পড়েছে। সেই সঙ্গে সরকারী বেসরকারী হাসপাতালে রাখা হয়েছে দুষ্কৃতীদের, সেটা এই ঘটনা থেকে পরিস্কার। গাফিলতিতে কোনও রোগীর মৃত্যু হলে সেই সব দুষ্কৃতীদের দিয়ে রোগীর আত্মীয়দের ভয় দেখাচ্ছে। তৃণমূল সরকারের পায়ের তলায় মাটি সরে গিয়েছে, তাই এই সব করছে।

এব্যাপারে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে ফোন করলে গুলি চালানোর কথা অস্বীকার করে। তারা জানায়, বাইরে থেকে এসে দুষ্কৃতীরা এই কাজ করেছে। ঘটনার তদন্তে নেমেছে বনগাঁ থানার পুলিশ।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here