বনগাঁয় ৬টি ওয়ার্ড সিল, ২১ দিনের জন্য পুরোদমে লকডাউন, বন্ধ থাকবে ওষুধের দোকানও

সুশান্ত ঘোষ, আমাদের ভারত, উত্তর ২৪ পরগনা, ১০ মে: তৃতীয় দফার লকডাউনের পরও লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। আর তাই করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় এবার বড়সড় সিদ্ধান্ত নিল উত্তর ২৪ পরগনার বনগাঁর মহকুমা শাসক ও অন্যান্য আধিকারিকরা। বনগাঁর ছয়টি ওয়ার্ড সিল করে দেওয়া হল। ১০ মে থেকে বন্ধ থাকবে বনগাঁর সমস্ত দোকান-বাজার ও ওষুধের দোকানও। সাধারণ মানুষদের বাড়ি থেকে বের হওয়াও সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ৷ আপাতত ২১ দিন জারি থাকবে এই নিয়ম জানালেন বনগাঁ মহকুমার এসডিপিও।

পুলিশ সূত্রের খবর, শনিবার রাতে বনগাঁর মহকুমা শাসকের ‘আরণ্যক’ কক্ষে এক বিশেষ আলোচনায় বসেন বনগাঁর প্রশাসনিক কর্তা, ব্যবসায়ী সংগঠনের প্রতিনিধি ও জনপ্রতিনিধিরা। সেই বৈঠকেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানান বনগাঁর এসডিপিও অশেষ বিক্রম দস্তিদার। সূত্রের খবর, করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় পুরসভার পক্ষ থেকে একটি কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে সাধারণ মানুষের জন্য। পুরসভার তরফে জানানো হয়েছে, ২২টি ওয়ার্ডের মধ্যে ১, ২, ৪, ১০, ১৩, ১৯ নম্বর ওয়ার্ডগুলি সম্পূর্ণভাবে লকডাউন থাকবে। ওষুধের দোকানও থাকবে বন্ধ। তবে জরুরি পরিস্থিতিতে ওষুধের দোকানগুলি হোম ডেলিভারি করতে পারবে৷ এছাড়াও এই লকডাউনে যাতে সাধারণ মানুষের কোনও অসুবিধা না হয়, সেই কারণে নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী পৌঁছে দেওয়া হবে বাড়ি বাড়ি। কন্ট্রোলরুমে ফোন করলেই প্রয়োজনীয় ওষুধ বা আপৎকালীন পরিস্থিতিতে সমস্ত সুবিধা পাওয়া যাবে বলে জানিয়েছেন বনগাঁ পৌরসভার চেয়ারম্যান শঙ্কর আঢ্য৷

মহাকুমা প্রশাসন সূত্রে খবর, রবিবার বিকেল পাঁচটা থেকে শুরু হচ্ছে এই নতুন নিয়ম। প্রসঙ্গত, এখনও পর্যন্ত বনগাঁয় তিনজন করোনা আক্রান্তের সন্ধান মিলেছে। তাঁদের সংস্পর্শে আসা অনেককে চিহ্নিত করে কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে। তা সত্ত্বেও সংক্রমণের আতঙ্ক থেকেই যাচ্ছে। সেই কারণেই এলাকাবাসীদের সুরক্ষার ও করোনা থেকে মুক্তি পেতে এই সিদ্ধান্ত বনগাঁ প্রশাসনের।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here