ভোট পরবর্তী হিংসার মামলায় রাজ্যকে ভর্ৎসনা কলকাতা হাইকোর্টের, নেওয়া হলো কড়া পদক্ষেপ

আমাদের ভারত, ১৯ জুন:
ভোট-পরবর্তী হিংসায় ঘরছাড়াদের মামলায় রাজ্য সরকারকে ভর্ৎসনা করল কলকাতা হাইকোর্টের বৃহত্তর বেঞ্চ। শুক্রবারে মামলার শুনানিতে ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি রাজেশ বিন্দালের নেতৃত্বাধীন পাঁচ সদস্যের বেঞ্চ বলেছে, “প্রতিটি মানুষের অধিকার আছে নিজের বাড়িতে শান্তিতে বসবাস করার। আর সেটা দেখা রাজ্যের কাজ। রাজ্য প্রথম থেকে সবকিছু অস্বীকার করেছে।
কিন্তু রাজ্য লিগাগের সার্ভিস এইডের রিপোর্ট অন্য কথা বলছে।”

রিপোর্ট অনুযায়ী ৩২৪৩ জন ঘরছাড়া ব্যক্তি স্টেট লিগাল সার্ভিস অথরিটির কাছে বাড়ি ফেরার আবেদন করেছেন। এই মামলার গত শুনানিতে হাইকোর্ট তিন সদস্যের একটি কমিটি করে দিয়েছিল। লিগাল এইড সার্ভিসের একজন, জাতীয় ও রাজ্য মানবাধিকার কমিশনের তরফে একজন করে প্রতিনিধি নিয়ে সেই কমিটি গঠন করেছিল আদালত। এদিনে শুনানিতে রাজ্য ও জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের কাজ নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছে আদালত।

শুক্রবারের শুনানিতে ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি বলেছেন, “আমরা খুশি নই যেভাবে জাতীয় এবং রাজ্য মানবাধিকার কমিশন কাজ করেছে। লিগাল এইড সার্ভিসে যারা ঘরে ফেরার আবেদন জানিয়েছেন তাদের আবেদন খতিয়ে দেখে তাদের নিজেদের বাড়িতে ফেরার বন্দোবস্ত করতে দ্রুত পদক্ষেপ করার নির্দেশ দিয়েছে আদালত। আগামী ৩০ জুন আবার এই মামলার শুনানি হবে। ঘরছাড়াদের বাড়ি ফেরার সময় কমিশনের ২ সদস্যকে সেখানে থাকতে বলেছে আদালতে বৃহত্তর বেঞ্চ।

একইসঙ্গে রাজ্যের উদ্দেশ্যে আদালত বলেছে, নির্বিঘ্নে যাতে ঘরছাড়ারা তাদের বাড়িতে ফিরতে পারেন এবং নিজের বাড়িতে শান্তিতে থাকতে পারেন রাজ্য সরকারকে সেটা সুনিশ্চিত করতে হবে। কারণ আইন শৃঙ্খলা রক্ষা করা রাজ্য সরকারের কাজ।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, বিজেপি দাবি করেছে তাদের অন্তত সাড়ে সাত হাজার কর্মী সমর্থক ঘরছাড়া। উত্তরবঙ্গেই কয়েক হাজার মানুষ প্রতিবেশী রাজ্য অসমে গিয়ে আশ্রয় নিয়েছে। বিজেপির আরও বক্তব্য, লিগাল এইডে আবেদন জানানো সংখ্যাটাই সব নয়। এর বাইরেও বহু লোক রয়েছেন যারা ভয় সব জানাতে পারছেন না।

এদিকে বৃহস্পতিবার নবান্নে রাজনৈতিক হিংসার প্রসঙ্গে মমতা বলেন, আপনাদের কারও চোখে কোনও হিংসার ঘটনা পড়েছে কি? কারো চোখে যদি ন্যাবা হয় আমি কি করতে পারি? তিনি আরও বলেছিলেন, অল্পবিস্তর যা ঘটনা ঘটেছে তা অধিকাংশই পারিবারিক বিবাদ কিংবা বিজেপির অভ্যন্তরীণ কোন্দল। কিন্তু আজ আদালত মানেনি বলে তীব্র ভাবে ভর্ৎসনা করেছে।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here