বাগনানের ‘চন্দ্রভাগ’-এর চ্যাটার্জি পরিবারের ঠাকুর দালান এবং আটচালার চারপাশে রয়েছে বারোটি শিব মন্দির

আমাদের ভারত, ৪ অক্টোবর: বাগনানের কাছে ‘চন্দ্রভাগ’-এ চ্যাটার্জি পরিবারের পুজো ইতিহাসের কথা বলে।

সময়ের সাথে সাথে, অনেক জমকালো এবং চাকচিক্য হারিয়ে গেছে। কিন্তু পুজো এখনও একই ধর্মীয় উৎসাহ বহন করে। হাওড়া জেলার বাগনানের কাছে চ্যাটার্জি পরিবারের পুজোর কথা জানালেন অধ্যাপক মৃত্যুঞ্জয় চট্টোপাধ্যায়।

তাঁর কথায়,“আমার পৈতৃক গ্রাম ‘চন্দ্রভাগ’-এর এই পুজো কলকাতার থেকেও পুরনো, ৪৩৯ বছর আগেকার। পূর্ববর্তী জমিদারদের তৈরি ঠাকুর দালান এবং আটচালার উভয় পাশে বারোটি শিব মন্দির রয়েছে। মন্দিরগুলিতে শুধুমাত্র চ্যাটার্জি পরিবারের সদস্যরা পূজা দিতে পারেন। অন্য দুটি সংলগ্ন শিব মন্দির বহিরাগতদের জন্য। সমস্ত ‘শিব লিঙ্গ’ কাশির।

একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মৃত্যুঞ্জয়বাবুর স্মৃতিচারণ, “লোককথা আছে যে জমিদারের মা কাশীতে যাওয়ার ইচ্ছা পোষণ করেছিলেন। কিন্তু তিনি খুব অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন এবং তাঁর ভ্রমণ করার কোনও উপায় ছিল না। জমিদার তৎকালীন প্রত্যন্ত গ্রামে কাশী তৈরির সিদ্ধান্ত নেন। পেশাদারদের নিয়োগ করা হয়েছিল এই কাজে। শিব লিঙ্গগুলিকে কাশী থেকে গঙ্গা ও দামোদর হয়ে নৌকায় নিয়ে আসা হয়েছিল। জমিদারের মা তাঁর ইচ্ছা পূরণের জন্য অনেক দিন বেঁচে ছিলেন।

চমৎকার হাভেলি এখন আর নেই। অনেক আগেই সে সব চলে গেছে। দুর্গা পুজোর সময় ঝাড়বাতি, যাত্রা, পালা গানের আসর কবি গানের লড়াই— এ সব রয়ে গিয়েছে স্মৃতি ও একটি সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যে। আমার পৈতৃক বাড়ির অবশিষ্টাংশ এখনও ধ্বংসাবশেষের মধ্যে দাঁড়িয়ে আছে।”

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here