টানা প্রতিবাদ কর্মসূচির পর ২১ জুলাই বুথে বুথে ভার্চুয়াল সভার নির্দেশ দিলেন মুখ্যমন্ত্রী

রাজেন রায়, কলকাতা, ৩ জুলাই: করোনা পরিস্থিতির কারণে ২১ জুলাই শহিদ সমাবেশ বাতিল করে দেওয়ায় বিজেপির মতো তৃণমূলও যে ভার্চুয়াল সভার দিকে ঝুঁকছে, তা যেন পরিষ্কারই হয়ে গিয়েছিল। শুক্রবার কালীঘাটে নিজের বাসভবন থেকে ভার্চুয়াল মাধ্যমে কথা বলেন দলের নেতা, মন্ত্রী, বিধায়ক, সাংসদ সকলের সঙ্গে। সেখানেই ২১ জুলাই বুথে বুথে শহিদ দিবস পালন করার জন্য দলীয় কর্মীদের নির্দেশ দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। একই সঙ্গে তার আগে ৬ জুলাই থেকে ১৩ জুলাই কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে টানা প্রতিবাদ কর্মসূচি বেঁধে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী।

মমতা বলেন,‘করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের কারণে এবার আর বড় করে একুশে জুলাই করা সম্ভব হচ্ছে না। তাই বুথে বুথে কর্মীদের নিয়ে একুশে জুলাই শহীদ দিবস পালন করতে হবে। শহীদ বেদীতে মাল্যদান ও পতাকা উত্তোলন করার পর এবারে এভাবেই শহীদ দিবস পালন করতে হবে।’

এদিন তৃণমূল কংগ্রেসের নতুন কোষাধ্যক্ষ নির্বাচিত হলেন শুভাশিস চক্রবর্তী। তমোনাশ ঘোষের মৃত্যুতে দলের কোষাধ্যক্ষের শূন্যস্থানে বসানো হলো রাজ্যসভার সাংসদ শুভাশিস চক্রবর্তীকে।

মুখ্যমন্ত্রীর প্রস্তাব অনুযায়ী, ২১ জুলাই বুথে বুথে শহীদ বেদী তৈরি করে শ্রদ্ধা জানানো হবে। তারপর দুপুর ২ টোর সময়ে ভার্চুয়াল মাধ্যমে বক্তব্য রাখবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ধর্মতলায় শুধুমাত্র শহীদ বেদীতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হবে। কিন্তু অন্য জায়গা থেকে বক্তব্য রাখবেন মুখ্যমন্ত্রী।

আমফান থেকে রেশন দুর্নীতি, একাধিক কারণে দলীয় কর্মীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে। এদিন মমতা দলীয় কর্মীদের হুশিয়ারি দিয়ে বলেন, ‘আমার দলে কর্মীরাই আমার সম্পদ। যারা ভাবছেন দুর্নীতি করে দলকে বদনাম করবেন, তাদের বিরুদ্ধে দল কড়া ব্যবস্থা নেবে। প্রয়োজনে আমি নতুন নেতা তৈরি করে নেব। তবে দুর্নীতির সঙ্গে আপস করব না। আমফান দুর্যোগের ত্রাণ নিয়ে যারা দুর্নীতি করেছেন, তাদের কোনও ভাবে ছাড়া হবে না। আমার কাছে কিন্তু সব খবর আছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘বিজেপি নেতারা রাস্তায় নেমে সরকারের বিরুদ্ধে প্রচার করছে, মানুষকে ভুল বোঝাচ্ছে। আপনারা ঘরে চুপচাপ বসে আছেন কেন?
সামাজিক দূরত্ব মেনে আপনারাও প্রচার করুন। আগামী বিধানসভায় প্রত্যেক বিধায়ককে নিজের বিধানসভায় জিততেই হবে। তাই এখন থেকেই নিবিড় জনসংযোগ তৈরি করুন। কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে সরব হতে হবে। রেল ও কয়লার বেসরকারিকরণের বিরুদ্ধে কেন্দ্রীয় সরকার যে ভুল পদক্ষেপ নিচ্ছে, তা সাধারণ মানুষকে বোঝাতে হবে। পেট্রোল-ডিজেলের দাম যেভাবে দিন দিন বাড়ছে তা নিয়ে বুথে বুথে প্রতিবাদ সংগঠিত করতে হবে। আর আমাদের সরকার কি করেছে, তার নমুনা তুলে ধরতে হবে। নিজেদের মধ্যে কাজ ভাগ করে নিন।’ চিন সংক্রান্ত বিষয়ে তিনি বলেন, ‘এটি খুব স্পর্শকাতর বিষয়। এ বিষয়ে আপনারা কিছু বলবেন না, যা বলার আমি বলব।’

মু়খ্যমন্ত্রী জানিয়ে দেন, আগামী ৭ জুলাই থেকে লাগাতার প্রত্যেকদিন ভিন্ন কর্মসূচি নিয়ে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে পথে নামছে তৃণমূল কংগ্রেস। পেট্রোল-ডিজেল, রেলের বেসরকারিকরণ, কোল ইন্ডিয়া সহ একাধিক ক্ষেত্রে নিয়ে প্রতিবাদ দেখাবে তৃণমূল কংগ্রেস। এ প্রসঙ্গে মমতা বলেন, ‘৬-১৩ জুলাই কর্মসূচি দিয়ে দেবে দল। তা নিজের এলাকায় এলাকায় ঠিকভাবে পালন করতে এবং করাতে হবে বিধায়কদের। শহীদ দিবসের আগেই রাজনৈতিক জমি শক্ত করার লক্ষ্যে এভাবেই আগামী সোমবার থেকেই নেমে পড়ার নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী। ২১ জুলাইয়ের আগে এভাবেই রাজনৈতিক শক্তি যাচাই করে নিতে চায় তৃণমূল।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here