‘দলের ছোটখাটো নেতাদেরও সিআরপিএফ, মণীশের নয় কেন?’ বিজেপিকে পাল্টা প্রশ্নবাণ ফিরহাদের, জবাব লকেটের

রাজেন রায়, কলকাতা, ৫ অক্টোবর: মনীশ শুক্লাকে কেন্দ্রীয় সিআরপিএফ বাহিনী দেওয়া হল না কেন? প্রশ্ন তুললেন পুরমন্ত্রী তথা পুর প্রশাসক মণ্ডলীর চেয়ারম্যান ফিরহাদ হাকিম। সোমবার পুরসভায় সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে ফিরহাদ তিনি বলেন, ‘দলের অন্যান্য ছোট খাটো নেতারা সুরক্ষার জন্য সিআরপিএফ বাহিনী পেল। কিন্তু মনীশকে কেন কেন্দ্রীয় বাহিনী পেল না?’ যদিও এর জবাবে বিজেপি নেত্রী লকেট চট্টোপাধ্যায় দাবি করেছেন,’আমাদের কর্মীরাই আমাদের সিআরপিএফ। ফিরহাদ হাকিমের মাথা খারাপ হয়ে গিয়েছে, তাই ভুলভাল বকছে। আমাদের মধ্যে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব তৈরি করার চেষ্টা করছে, কিন্তু আসল গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে ভুগছে ওরাই।’

রবিবার সন্ধ্যায় দুষ্কৃতীদের হাতে খুন হয়েছেন বিজেপি নেতা মনীশ শুক্লা। বিজেপির অভিযোগ, শাসক দলের মদতে সুপরিকল্পিত ভাবে এই ঘটনা ঘটানো হয়েছে। কিন্তু এদিন বিজেপির সেই অভিযোগকে সম্পূর্ণ খারিজ করে দেন ফিরহাদ হাকিম। তিনি বলেন,’যে কোনও মৃত্যুই অত্যন্ত বেদনাদায়ক। মনীশের মৃত্যুও অত্যন্ত দুঃখজনক। মনীশ আমার ছোট ভাইয়ের মত। ওর মার কথা ভেবে আমার খারাপ লাগছে। ওর আত্মার শান্তি কামনা করি।’
পাশাপাশি, এদিন ফিরহাদ মনীশের মৃত্যু নিয়ে একাধিক জল্পনা তুলে দিয়ে বলেন, ‘যে সময় দুষ্কৃতীরা মনীশকে খুন করে সে সময় তাঁর আশেপাশে কোনও দেহরক্ষী ছিল না কেন? সে সময় দেহরক্ষী কোথায় গেছিল? এদিকে ঘটনার দিনই তড়িঘড়ি কৈলাস বিজয়বর্গীয় ডেকে পাঠান অর্জুন সিংকে। সবকিছু নিয়েই একটা ধোঁয়াশা রয়েছে।’

রাজ্য পুলিশের ওপর আস্থা রেখে এদিন ফিরহাদ বলেন, ‘বাংলার পুলিশের ওপর পূর্ণ আস্থা আছে। পুলিশ তদন্ত করছে। আমি নিশ্চিত দোষীদের খুঁজে বের করে শাস্তি দেবে। সব অন্যাযের বিচার হবে। তবে পশ্চিমবঙ্গের পুলিশ উত্তরপ্রদেশের মতো নয়। তদন্ত করে খুঁজে বার করবে দোষীদের। সমস্ত চক্রান্ত ফাঁস হবে। তাদের বিচার হবে এনকাউন্টারে নয়, আদালতে বিচারকের সামনে। তৃণমূল খুনের রাজনীতিতে বিশ্বাসী নয়। অর্জুন প্রমাণ করুক বাংলায় সারপ শুটার কে এনেছে। বাইরে থেকে এই রাজ্যে ক্রিমিনাল কালচার কে এনেছে? গুলি কোথায় চলেছে? বাইরে থেকে ক্রিমিনাল এনে চাপ দিয়ে মনীশকে বিজেপিতে যেতে বাধ্য করা হয়েছিল।’

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here