করোনাজয়ী হাবড়ার তরুণীর প্লাজমায় আগামী সপ্তাহেই হতে চলেছে রাজ্যের প্রথম ‘প্লাজমা থেরাপি’

সৌভিক বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা, ২৫ এপ্রিল: হাইড্রক্সি ক্লোরোকুইন প্রয়োগের মত প্লাজমা থেরাপিও যে করোনা চিকিৎসায় ভালো ফল দিতে পারে, তার নজির মিলেছে আগেই। ফেব্রুয়ারি মাস থেকেই চিন সহ বিভিন্ন দেশে করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য ‘প্লাজমা থেরাপি’ চালু করে সুফল পেয়েছেন চিকিৎসকরা। এ দেশেও এ বিষয়ে পথপ্রদর্শক কেরল এবং দিল্লি। এবার সেই পথে হেঁটেই রাজ্যের প্রথম করোনাজয়ী হাবড়ার বাসিন্দা স্কটল্যান্ডের এডিনবরা বিশ্ববিদ্যালয় ফেরত তরুণীর প্লাজমার সাহায্যে আগামী সপ্তাহেই এ রাজ্যেও প্লাজমা থেরাপি শুরু করতে চলেছেন বেলেঘাটা আইডির চিকিৎসকরা।

প্রসঙ্গত, করোনা সংক্রমণকে রুখে দিতে এ দেশে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা নিয়েছে কেরল। কিছুদিন আগেই কেরলের পথে হেঁটে ‘পুল টেস্ট’ শুরু হয়েছিল পশ্চিমবঙ্গে। এবার ফের কেরল ও দিল্লির পথে হেঁটে শুরু হতে চলেছে প্লাজমা থেরাপিও। এক্ষেত্রে আক্রান্ত থেকে সুস্থ হয়ে ওঠা মানুষের রক্তের উপাদান এখনও করোনায় আক্রান্ত মানুষের শরীরে প্রবেশ করালে করোনাজয়ীর শরীরের অ্যান্টিবডি আক্রান্ত মানুষগুলিকে করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সাহায্য করবে। এই অ্যান্টিবডির সাহায্যেই নির্মূল হবে ভাইরাস। স্কুল অফ ট্রপিক্যাল মেডিসিনের দুই চিকিৎসক ডা. বিভূতি সাহা ও ডা. যোগীরাজ রায় এবং আইসিএমআরের ডা. দীপ্যমান গঙ্গোপাধ্যায়ের তত্ত্বাবধানে এই থেরাপি চলবে। ডা. বিভূতি সাহা ও ডা. যোগীরাজ রায় এখন বেলেঘাটা আইডিতে কর্তব্যরত আছেন।

জানা গিয়েছে, সমস্ত অনুমতি প্রক্রিয়া সেরে ২৩ এপ্রিল রাজ্যের প্রথম দিকের করোনা জয়ী হাবড়ার তরুণীর সঙ্গে চিকিৎসক ডা. যোগীরাজই স্বাস্থ্য দফতরের তরফে যোগাযোগ করেন। সেই দিন নিজের জন্মদিন পালন করছিলেন ওই তরুণী। করোনা যুদ্ধে পাশে দাঁড়াতে নিজের জন্মদিনের আনন্দে প্লাজমা দিতে এক কথায় রাজি হয়ে যান তরুণী।

উল্লেখ্য, প্লাজমা থেরাপি নতুন নয়, রক্তের অনেক জটিল রোগেই ব্যবহার করা হয়। সেই পদ্ধতিকেই বিশ্বজুড়ে করোনার বিরুদ্ধে প্রয়োগ করে দেখা হচ্ছে। সব কিছু ঠিকঠাক চললে আগামী সপ্তাহের শুরুর দিকে করোনার বিরুদ্ধে বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে ‘প্লাজমা থেরাপি’-র প্রয়োগ করবেন চিকিৎসকরা।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here