বালুরঘাটে শিলান্যাস হওয়া রাস্তার কাজ আটকালো বনদপ্তর, বাসিন্দাদের বিক্ষোভের মুখে পড়ে পালিয়ে বাঁচলেন বনকর্মীরা

আমাদের ভারত, বালুরঘাট, ২৩ জানুয়ারি: শিলান্যাসের পরেও রাস্তা তৈরির কাজে বাধা প্রদানের অভিযোগ বনদপ্তরের বিরুদ্ধে। ঘটনাকে ঘিরে উত্তেজনা এলাকায়। বাসিন্দাদের বিক্ষোভের মুখে পড়লেন বনকর্মীরা। বৃহস্পতিবার দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার বালুরঘাটের বোয়ালদার গ্রাম পঞ্চায়েতের চকডাঙ্গার নওপাড়া এলাকার ঘটনা। বিষয়টি নিয়ে রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রের অভিযোগ তুলেছেন আরএসপির পঞ্চায়েত সদস্য।

বালুরঘাটের বিডিও অনুজ শিকদার জানিয়েছেন, সরকারি সমস্ত নিয়ম মেনেই ওই কাজ করা হচ্ছে। এদিনের কোন ঝামেলার খবর তাঁরা এখনো পাননি।

চকডাঙা নওপাড়া এলাকায় ৩০ থেকে ৩৫টি পরিবারের বসবাস। এলাকায় কোনও পাকা রাস্তা না থাকায় প্রতিবছর বর্ষার সময় জলে ডুবে থাকত এলাকা। এমন সমস্যা থেকে বাঁচতে গ্রামবাসীরা একাধিকবার আন্দোলনের পথও বেঁছে নেন। অবশেষে উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দপ্তরের উদ্যোগে গ্রামের রাস্তা তৈরি করতে প্রায় ২৬ লক্ষ টাকা বরাদ্দ হয়। গত ১৮ জানুয়ারি ওই কাজের শিলান্যাস করেন বালুরঘাট ব্লকের বিডিও ও পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি। অভিযোগ, এদিন নওপাড়া ফরেস্টের মধ্য দিয়ে ক্রসবাই রাস্তার কাজ শুরু হতেই বন দপ্তরের কর্মীরা তাতে বাধা প্রদান করেন। তাদের অভিযোগ নো অবজেকশন শংসাপত্র না নিয়েই এমন কাজ শুরু করা হয়েছে। যে অভিযোগে কাজ বন্ধ করতেই উত্তেজিত হয়ে উঠেন স্থানীয় বাসিন্দারা। বিক্ষোভ দেখানো হয় বনকর্মীদের ঘিরে। যার পরেই উর্ধতন কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে এলাকা ছাড়েন বন কর্মীরা।

এলাকার আরএসপি পঞ্চায়েত সদস্য অনুকুল চন্দ্র দাস জানিয়েছেন, বাসিন্দাদের দীর্ঘ দিনের দাবি পূরণে অর্থ বরাদ্দ করেছে উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দপ্তর। কিন্তু সেখানে কোন রাজনৈতিক ফয়দা তুলতে না পেরে এমন চক্রান্ত করা হচ্ছে বারবার।

স্থানীয় বাসিন্দা বিনোদ হেমব্রম জানিয়েছেন, তাদের গ্রামের মানুষ রাস্তার অভাবে চলাফেরা করতে চরম অসুবিধায় পড়েন। যার থেকে বাঁচতে রাস্তার কাজ শুরু হলেও তা আটকে দেওয়ার চেষ্টা হচ্ছে। এমন ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানান।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here