হেলমেটহীন বেপরোয়া বাইকের ধাক্কায় পা ভাঙার পরেও যুবককে পাকড়াও সার্জেন্টের

10

সৌভিক বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা, ৩ ফেব্রুয়ারি: আর পাঁচটা দিনের মতোই ডিউটি দিচ্ছিলেন যাদবপুর থানার সার্জেন্ট। ডিউটি ছিল লর্ডস মোড়ে। সেখানেই এক বেপরোয়া হেলমেটবিহীন বাইক চালককে আটকাতে গিয়ে কার্যত পাল্টা হামলার মুখে পড়লেন ওই সার্জেন্ট। ইচ্ছাকৃত ভাবে তাঁর পায়ে বাইকের চাকা দিয়ে ধাক্কা মেরে ফেলে দেয় ওই যুবক। তবুও পায়ে অসহ্য যন্ত্রণা নিয়েও নিজের বাইকে চেপে ওই যুবককে পাল্টা ধাওয়া করেন সার্জেন্ট। পুলিশের তৎপরতায় ধরা পড়ে ওই যুবক। হয় গ্রেফতারও।

জানা গিয়েছে, রবিবার রাতে যাদবপুরের প্রিন্স আনোয়ার শাহ রোডের লর্ডস মোড়ে ডিউটিতে ছিলেন কলকাতা পুলিশের সার্জেন্ট রাজা রায়। রাত সাড়ে দশটা নাগাদ বেপরোয়া ভাবে বাইক চালিয়ে নিয়ে আসা এক যুবক আকাশ ঘোষকে আটক করতে যান তিনি। অভিযোগ, সেই সময় আকাশ ইচ্ছাকৃত ভাবে বাইকের চাকা দিয়ে দ্রুত গতিতে ধাক্কা মারে ওই সার্জেন্টকে। তাতেই গুরুতর আঘাত লেগে পড়ে যান ওই সার্জেন্ট। এদিকে তিনি পড়ে যেতেই বাইক নিয়ে চম্পট দেওয়ার চেষ্টা করে আকাশ। ঘটনার সময় সে হেলমেটও পড়ে ছিল না। সে বাইক নিয়ে বেড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করতেই পায়ে গুরুতর চোট নিয়েও তীব্র যন্ত্রণায় দাঁতে দাঁত চেপে নিজের বাইকে উঠে আকাশকে পাল্টা তাড়া করেন ওই সার্জেন্ট।

গোটা ঘটনাটাই চোখে পড়েছিল রাস্তার কোনে গুমটির মধ্যে থাকা ট্রাফিক পুলিশকর্মীর। তিনি ওয়াকিটকিতে সঙ্গে সঙ্গে বিষয়টি জানান যাদবপুর থানা মোড়ে কর্তব্যরত অপর এক সার্জেন্টকে। সেই খবর পেয়েই আকাশকে সেখানে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে তাকে তাড়া করেন যাদবপুর থানা মোড়ের সার্জেন্ট। দুই সার্জেন্টের তাড়ায় অবশেষে জীবানন্দ সেতুর ওপরেই ধরা পড়ে যায় আকাশ। তাকে গ্রেফতার করে আনা হয় যাদবপুর থানাতে। তার বিরুদ্ধে কর্তব্যরত পুলিশকে ইচ্ছাকৃতভাবে আঘাত করা, কর্তব্য পালনে বাধাদান, বেপরোয়া ড্রাইভিং ও হেলমেট না পড়ার মামলা দেওয়া হয়েছে। সোমবার দুপুরে তাকে আলিপুর আদালতে তোলার কথা রয়েছে। এদিকে লর্ডস মোডের সার্জেন্ট রাজা রায়ের পায়ে বাইকের ধাক্কায় চির ধরেছে বলে জানা গিয়েছে। তাঁর ঘাড়ে ও কোমরে চোট লেগেছে বলে জানা গিয়েছে। বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে আকাশের বাইকটিও।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here