তোলা আদায়কে কেন্দ্র করে দোকান মালিকের ছেলেকে মারধর, ইছাপুরে শুরু তৃণমূল-বিজেপির চাপানউতোর

আমাদের ভারত, ব্যারাকপুর, ১৮ সেপ্টেম্বর: তোলা আদায়কে কেন্দ্র করে দোকান মালিকের ছেলেকে মারধরের অভিযোগ। ইছাপুরের গোয়ালাপাড়া তেঁতুলতলা এলাকায় গত জন্মাষ্টমীর দিন একটি জামা কাপড়ের দোকানের উদ্বোধন হয়। অভিযোগ, সেই দোকানদারের থেকে স্থানীয় তৃণমূল নেতা সঞ্জয় দাসের লোকেরা ৫০ হাজার টাকা দাবি করে। সেই টাকা দিতে অস্বীকার করে দোকান মালিক বরুণ ঘোষ। গতকাল তৃণমূল আশ্রিত একদল দুষ্কৃতী সেই দোকানে গিয়ে চড়াও হয়। তোলা চেয়ে দোকান মালিক বরুণ ঘোষের ছেলে আদিত্য ঘোষকে মারধর করা হয় এমনকি তাকে আগ্নেয়াস্ত্র দেখিয়ে ভয় দেখানোর চেষ্টা করা হয় বলেও অভিযোগ। আক্রান্ত আদিত্য ঘোষের দাবি, সেই সময় আদিত্য ঘোষকে বাঁচাতে এগিয়ে আসে স্থানীয়রা। আর তখন ঐ দুষ্কৃতীদের ধরে মারধর দেয় স্থানীয়রা।

ঘটনা সম্পর্কে বলতে গিয়ে আদিত্য ঘোষ জানান, তারা যেহেতু নতুন দোকান করেছেন সেই কারণে তাদের কাছে টাকা চাওয়া হচ্ছে সঞ্জয় দাসের পক্ষ থেকে এবং টাকা না দেওয়াতেই তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা
তাকে মারধর করেছে বলেও অভিযোগ করেন।

অপরদিকে এই ঘটনায় অভিযুক্ত বিশ্বদীপ ভদ্রর পাল্টা অভিযোগ, তিনি পুরনো মোবাইলের ব্যবস্যা করেন আর তাই কদিন ধরেই তার কাছ থেকে একটি মোবাইল চাওয়া হয়েছিল কিন্তু তার বিনিময়ে তাকে টাকা দেওয়া হবে না এই কথা বলাতে সে মোবাইল দিতে অস্বীকার করে আর সেই কারণেই তাকে মারধর করা হয়েছে।

অন্যদিকে এই ঘটনায় মূল অভিযুক্ত সঞ্জয় দাস উল্টে অভিযোগ করেন, যেহেতু তারা তৃণমূল কংগ্রেস করেন সেই কারণে তাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করা হচ্ছে। তিনি এদিন অভিযোগ করে বলেন, “গোটা ঘটনাটি ঘটিয়েছে বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরা।তৃণমূল কংগ্রেসের ছেলেদেরকে মারধর করা হয়েছে। অথচ তাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করা হচ্ছে। আমরা কারোর থেকে কোনও টাকা চাইনি। সব মিথ্যা অভিযোগ।

অন্যদিকে এ ঘটনার জন্য তৃণমূল কংগ্রেস আশ্রিত দুষ্কৃতীদের কে দায়ী করেন রাজ্য বিজেপি যুব মোর্চা কমিটির সদস্য কুন্দন সিং। তিনি এদিন বলেন,
“তৃণমূল একটি তোলা বাজদের দল। ওদের কাজ তোলা চাওয়া। ওরা সেটাই করেছে। এরা যার কাছে তোলা চেয়েছিল তার বিরুদ্ধেই উল্টে থানায় অভিযোগ করেছে। এবার পুলিশ তদন্ত করে দেখুক পুরো
বিষয়টা।”

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here