উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্র অন্যত্র নিয়ে যাওয়া হচ্ছে! প্রতিবাদে দিনভর ধুন্ধুমার কান্ড তপনের ভাড়িলাতে

পিন্টু কুন্ডু, বালুরঘাট, ২৯ জুন: উপ স্বাস্থ্য কেন্দ্র অন্যত্র সরিয়ে নেওয়ার প্রতিবাদে ধুন্ধুমার কান্ড ভাড়িলাতে। স্বাস্থ্য কর্মীদের তালাবন্দি করে বিক্ষোভ দেখানোর পাশাপাশি রাজ্য সড়ক অবরোধ করেও বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন গ্রামের মহিলারা। বুধবার সকাল থেকে এই ঘটনাকে ঘিরে তুমুল উত্তেজনা ছড়ায় তপনের ভারিলা এলাকায়। ঘটনার খবর পেয়ে এলাকায় পৌছায় তপন থানার বিরাট পুলিশ বাহিনী। দীর্ঘ কয়েকঘন্টা পর পুলিশ ও প্রশাসনের যৌথ আশ্বাসে স্বাভাবিক হয় পরিস্থিতি, উঠে যায় অবরোধ। তালামুক্ত করা হয় স্বাস্থ্য কর্মীদের।

জানাগেছে, ভারিলা এলাকার বেশ কয়েকটি মৌজার বাসিন্দারা চিকিৎসার জন্য স্থানীয় হরিবংশীপুর উপ স্বাস্থ্য কেন্দ্রের উপরই এতদিন নির্ভরশীল ছিলেন। অভিযোগ, গ্রামবাসীদের অন্ধকারে রেখে কাউকে কিছু না জানিয়ে হঠাৎ করে ওই উপ স্বাস্থ্য কেন্দ্রটি প্রায় ৮ কিলোমিটার দূরে মালডাঙ্গা স্বাস্থ্যকেন্দ্রের আওতাভুক্ত করে দেওয়া হয়। যার ফলে এলাকার বাসিন্দাদের স্বাস্থ্য পরিষেবা পেতে চরম হয়রানির মধ্যে পড়তে হবে এমন অভিযোগে এদিন সরব হন বাসিন্দারা।

প্রতিবাদে ভারিলাতে বালুরঘাট-তপন রাজ্য সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন স্থানীয়রা। পাশাপাশি হরিবংশীপুর স্বাস্থ্যকেন্দ্রের কমীদের ঘরে আটকে তালা ঝুলিয়ে দেন উত্তেজিতরা। এদিন সকাল থেকে এই ঘটনাকে ঘিরে ব্যাপক উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। যে খবর পেয়েই পুলিশ ও জয়েন্ট বিডিও পৌঁছে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করে।

স্থানীয় বাসিন্দা নয়নী টুডু ও বিপ্লব মজুমদাররা বলেন, তাদের না জানিয়ে কিভাবে আট কিলোমিটার দূরে স্বাস্থ্যকেন্দ্রেটি নিয়ে যাওয়া হল। প্রশাসনের এমন কর্মকাণ্ডের জেরে চরম হয়রানির মুখে পড়তে হবে এই এলাকার গ্রামবাসীদের। আর তার প্রতিবাদেই এদিন রাস্তা আটকে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন তারা। তাদের দাবি স্বাস্থ্য কেন্দ্রের পরিষেবা আগের মতোই এই এলাকায় স্বাভাবিক রাখতে হবে।

এক স্বাস্থ্যকর্মী শিবানি নস্কর বলেন, আগে দুটি উপ স্বাস্থ্য কেন্দ্র ছিল এলাকায়। বেশকিছু এলাকা ভাগ করে আরো একটি সেন্টার করা হয়েছে। সেখানে এই গ্রামবাসীরা যেতে চাইছেন না। যার প্রতিবাদেই এদিন তারা রাস্তা আটকে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন। তাদের সুবিধার্থে আপাতত ভাবে যেকোন জায়গায় এই গ্রামের লোকেরা পরিষেবা নিতে পারবে সেই ব্যবস্থা রাখা হচ্ছে।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here