অ্যাম্বুলেন্সে করোনা আক্রান্ত রোগী ও মৃতদেহ বহন করায় চালককে একঘরে, বাড়ি ছাড়ার হুমকি

সুশান্ত ঘোষ, আমাদের ভারত, উত্তর ২৪ পরগনা, ২৩ এপ্রিল: করোনা আক্রান্ত রোগী ও মৃতদেহ বহন করার অপরাধে চালককে একঘরে করে রাখার অভিযোগ এলাকাবাসীর বিরুদ্ধে। এমনকি বাড়ি ছেড়ে চলে যাওয়ারও হুমকি দেওয়া হচ্ছে। ঘটনাটি উত্তর ২৪ পরগনার অশোকনগর থানার ১৬ নম্বর ওয়ার্ডের ৫০/৭ নম্বর ওয়ার্ডের হরিপুর এলাকার। ওই অ্যাম্বুলেন্স চালকের নাম জীবনকৃষ্ণ দে।

অভিযোগ, দিন কয়েক আগে আশঙ্কাজনক অবস্থায় এক রোগীকে কলকাতার চাণক্য হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। সেই মৃত ব্যাক্তিকে তিনি তার গাড়িতে করে ফের অশোকনগর হাসপাতালে নিয়ে যান। এই খবর চাউর হতেই গ্রামবাসীদের দাবি, অ্যাম্বুলেন্সে করে করোনা আক্রান্ত রোগীকে বহন করা হয়েছে। এমনকি খবরটা থানা পর্যন্ত পৌছায়। অশোকনগর থানার পুলিশের তরফে ওই অ্যাম্বুলেন্সের চালককে ১৪ দিন বাড়ি থেকে না বের হওয়ার পরামর্শও দেওয়া হয়।

জীবনবাবুর অভিযোগ, এখানেই শেষ নয়, তার বাচ্চাকে যে দিদিমণিকে পড়ায় তাঁকে তাদের বাড়িতে না আসার হুমকি দেয় প্রতিবেশীরা। এমনকি সবসময় বাড়ির সামনে দিয়ে যারা যাচ্ছে তারা অ্যাম্বুলেন্সের দিকে তাকিয়ে কটাক্ষ করছে। জীবনবাবুর দাবি, যে মারা গিয়েছিলেন তিনি আগেই অসুস্থ ছিলেন। তিনি করোনায় মারা যাননি বলে চিকিৎসক সার্টিফিকেট দিয়েছেন। তার পরেও তাকে এভাবে হেনস্থা করা হচ্ছে এবং একঘরে করে রাখা হয়েছে কেন?

যদিও বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের সামনেই ১৬ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল নেতা অসিত দে ওই পরিবারের সঙ্গে দেখা করেন এবং তাদের আশ্বস্ত করেন কোনও রকম অসুবিধা হলে তিনি তাদের পাশে আছেন।

অন্যদিকে প্রতিবেশীরা সাংবাদিকদের দেখে মুখে কুলুপ এঁটেছেন। যদিও আতঙ্কের মধ্যে একমাত্র সন্তান এবং স্ত্রীকে নিয়ে দিন কাটছে জীবনবাবুর। তাঁর প্রশ্ন এমন হলে এরপর আর কোনো চালক আশঙ্কাজনক রোগীদের অ্যাম্বুলেন্সে করে নিয়ে করতে রাজি হবেন কি!

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here