ওরা ১৩ জন, দায়িত্ব নিয়েছে ৫০০ পরিবারের

সুুুশান্ত ঘোষ, বনগাঁ, ৬ মার্চ: কৃষকদের কাছ থেকে সবজি, চাল, ডাল, কিনে- সেই খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছেন লকডাউন এর ফলে সমস্যায় পড়া সাধারণ গরিব মানুষের কাছে। ১০টি গ্রামের ৫০০ পরিবারের দায়িত্ব নিয়েছেন ১৩ জন যুবক।

উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলার গাইঘাটা থানার ইছাপুর ১ নং পঞ্চায়েতের ঠাকুর নগর ও শিমুলপুর এলাকায় পলাশ দাস, কুমারেশ বালা, প্রসেনজিত রাহা, অভি দে সহ ১৩ জন যুবক ১৪ দিন ধরে এই কাজ করে চলেছে। কখনও রান্না করা খাবার দিচ্ছেন স্টেশনে থাকা ভবঘুরে ও গরিব মানুষের বাড়িতে। আবার কখনও শাকসবজি, সাবান, মাস্ক, তুলে দিচ্ছেন গরিব মানুষকে।

ইতিমধ্যে ঠাকুরনগর, পালপাড়া, শিমুলপুর, চাঁদপাড়া সহ ১০টি গ্রামের প্রায় পাঁচশো পরিবারের দায়িত্ব নিয়েছেন এই যুবকেরা। যতদিন লকডাউন থাকবে ততদিন এই গরিব মানুষের মুখে অন্ন তুলে দেবে এই ১৩ জন যুবক।

দলের নাম (সমাজ সুরক্ষা কমিটি) এই কমিটির সদস্য প্রেসেনজিত রাহা জানান, লকডাউন এর প্রথম দিন সোশ্যাল মিডিয়ায় একটা আবেদন করেছিলাম সাহায্য করতে চাই আমরা, কারা এগিয়ে আসতে চান এরপর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি ইতিমধ্যে সমাজ সুরক্ষা কমিটিতে আর্থিক সাহায্য জমা পড়েছে প্রায় ৬০ হাজার টাকা। সেই টাকা দিয়ে আমরা পাঁচশো পরিবারের খাবারের দায়িত্ব নিয়েছি। প্রতিদিন মোটর সাইকেল নিয়ে আমরা গ্রামে চলে যাযই সেখান থেকে শাক সবজি, চাল-ডাল কিনে নিয়ে রান্না করার পর সেই খাবার পৌঁছে দিই পরিবারগুলোর বাড়িতে। প্রতিদিন নিয়ম করে দুপুর ও রাতে চলছে এই পরিষেবা।

ইতিমধ্যে ৪৭ হাজার টাকা খরচ হয়ে গিয়েছে তবে প্রচুর সাহায্য আমাদের কাছে আসছে আমরা এটা চালিয়ে যেতে চাই। সমাজসেবার এই কর্মকাণ্ড দেখে এগিয়ে এসেছে এই কর্মকাণ্ডে যুক্ত থাকা যুবকদের আত্মীয়-স্বজন। দেশের এই দুঃসময়ে গ্রামের কোনও গরিব মানুষ যেন অভুক্ত না থাকে এটাই চান অনেকে, তাই সমাজ সুরক্ষা কমিটির যুবকদের পাশে দাঁড়িয়ে গ্রামবাসীরা সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here