করোনায় সুস্থতা বাড়লেও চিন্তা কলকাতাই! রাজ্যে ফের আক্রান্ত ৪৩৫, সুস্থ ৪৬৮, মৃত ১২

রাজেন রায়, কলকাতা, ১৮ জুন: বেশ কয়েকদিন ধরে সুস্থতার হার বাড়লেও রাজ্যের রাজধানী কলকাতায় সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার রীতিমত চিন্তায় রেখেছে স্বাস্থ্য দফতরের কর্তাদের। এদিন ফের ২৪ ঘন্টায় নতুন আক্রান্ত ৪৩৫ জন, সুস্থ ৪৬৮ জন এবং মৃত ১২ জন। তার মধ্যে কলকাতাতেই নতুন আক্রান্ত ১৮০ জন, সুস্থ ১৮২ জন এবং মৃত ৮ জন। কলকাতার বাড়ন্ত সংক্রমণ এবং মৃত্যু আটকানোর জন্য বিশেষ কোনও পরিকল্পনা করা যায় কিনা, আপাতত তাঁরই খোঁজে স্বাস্থ্য আধিকারিকরা।

বৃহস্পতিবার প্রকাশিত স্বাস্থ্য দফতরের বুলেটিন অনুযায়ী,
ফের ২৪ ঘন্টায় ৪৩৫ জন করোনা পজিটিভে রাজ্যে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ১২৭৩৫ জনে। আরও ১২ জনের মৃত্যু হওয়ায় রাজ্যে সরকারি হিসেবে মোট করোনায় মৃত্যু ৫১৮ জনের। আরও ৪৬৮ জন সুস্থের হিসেব ধরলে মোট সুস্থ হলেন ৭০০১ জন। এদিন অন্যান্য জেলার সঙ্গে কলকাতায় ১৮২ জন, হাওড়ায় ১৩৮ জন এবং উত্তর ২৪ পরগনায় ৪৯ জন সুস্থ হওয়ার হার ফের বেড়ে দাঁড়াল ৫৪.৯৭ শতাংশে।

এই মুহূর্তে রাজ্যে করোনা আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন ৫২১৬ জন। বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্য দফতর থেকে প্রকাশিত বুলেটিনে আরও জানানো হয়েছে, এদিন পর্যন্ত রাজ্যের ৪৭ টি ল্যাবে মোট করোনা টেস্টের সংখ্যা ৩৮০২৯১ জনের। তার মধ্যে ২৪ ঘন্টায় রাজ্যে করোনা পরীক্ষা হয়েছে ৯৩১৫ জনের। সরকারি ৫৮২টি কোয়ারেন্টাইনে এখন রয়েছেন ১০১১০ জন। ছেড়ে দেওয়া হয়েছে ৮৬৫১২ জনকে। হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন ১৪১৫৯৩ জন। ছেড়ে দেওয়া হয়েছে ১৪৪৭২৮ জনকে। শ্রমিক স্পেশাল ট্রেন ফেরত পরিযায়ী শ্রমিকদের তথ্যে জানানো হয়েছে, ৮২২৮ টি কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে ৭২১৫০ জন শ্রমিককে কোয়ারেন্টাইন করে রাখা হয়েছে। করোনা পরীক্ষা করে সুস্থ দেখে ১৭৭৭৮৬ জন শ্রমিককে কোয়ারেন্টাইন সেন্টার থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

এছাড়া এদিনের বুলেটিনে জেলাওয়াড়ি তথ্যে জানানো হয়েছে, কলকাতায় এদিন ১৮০ আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ায় মোট সংক্রমণ ৪২৬৯ জনের। এদিন কলকাতায় আরও ৮ জনের মৃত্যু হওয়ায় কলকাতাতেই মোট মৃত্যু ৩১৬ জনের। এছাড়া হাওড়ায় ২ জন, হুগলি এবং দক্ষিণ ২৪ পরগণায় ১ জন করে মোট আরও ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এদিন অন্যান্য জেলার সঙ্গে উত্তর ২৪ পরগনাতে ৬১ জন এবং হাওড়াতে ৫৭ জনের সংক্রমণ উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। এদিন উত্তরবঙ্গের কালিম্পং, উত্তর দিনাজপুর ও দক্ষিণ দিনাজপুর এবং দক্ষিণবঙ্গের বাঁকুড়া ও ঝাড়গ্রাম ছাড়া সংক্রমণ বেড়েছে রাজ্যের সব ক’টি জেলাতেই।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here