শ্রাবণ মাসের শেষ সোমবারে জন্য শিবনিবাসের উদ্দেশ্যে হাজার হাজার ভক্ত রওনা দিয়েছেন

স্নেহাশীষ মুখার্জি, আমাদের ভারত, নদিয়া, ১৪ আগস্ট: গেরুয়া পোশাক পরে শ্রাবণ মাসে শিবের মাথায় জল ঢালতে যাওয়ার চল দীর্ঘ কালের। এ মাসের প্রতি সোমবার, বিশেষ করে এই মাসের শেষ সোমবার তারকেশ্বরের পাশাপাশি নদিয়া জেলার শিবনিবাসে ভক্তেরা ভীর জমাবেন। সেই লক্ষে টানা লম্বা রাস্তা ধরে বহু ভক্ত শিবমন্ত্র জপ করতে করতে আজ শিবনিবাসের উদ্দেশে রওনা দিয়েছেন। ৩০ কিলোমিটার পথ তাঁরা হেঁটে যাবেন। সকলের কাঁধে বাঁক তাতে বাঁধা কলসি। কেউ যাচ্ছে শিব মন্ত্র জপ করে আবার অনেকে দল বেঁধে মাইক বাজিয়ে চলেছে।

রবিবার সকাল সকাল নবদ্বীপে গঙ্গায় গিয়ে গঙ্গাজল ঘড়াতে ভরে বাঁকে করে শিবনিবাসের উদ্দেশে রওনা দিয়েছেন ভক্তরা। কৃষ্ণনগরের রাস্তা ধরে শিবনিবাসের উদ্দেশ্যে রাস্তায় অগুনিত ভক্ত। রাস্তার মাঝে এই সকল ভক্তদের লুচি ও মিস্টি খাওয়ানোর ব্যবস্থা করেছে অনেক স্বেচ্ছাবেসী সংগঠন। যেমন কৃষ্ণনগর কাঁঠাল পোঁতার এক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন রবিবার সকাল থেকে শিব ভক্তদের খাওয়ানোর জন্য লুচি ও মিষ্টির ব্যবস্থা করেছে। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত প্রায় ৫০০০০ থেকে ৭০০০০ ভক্তের জন্য লুচি মিষ্টির ব্যবস্থা করা হয়েছে।

কাঁঠালপোঁতার স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের এক কর্তা বাবন পাল বলেন, “ তিরিশ বছর ধরে আমরা শিবনিবাসের উদ্দেশ্যে যাওয়া ভক্তদের খাওয়া দাওয়ার ব্যবস্থা করি, সারা রাত ধরে তারা ৩০ কিমি রাস্তা হেঁটে শিবের মাথায় জল ঢালতে যায়। তাদের খাওয়ানোর ব্যবস্থা করে আমারা কিছু পুণ্যি অর্জন করি।”

সারারাত হেঁটে সোমবার ভোরে শিবনিবাসে পৌঁছে রাজরাজেশ্বরের মাথায় জল ঢালতে মন্দির প্রাঙ্গণে উপস্থিত হবেন জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে আসা অসংখ্য ভক্ত। এই ভক্তদের মধ্যে বাচ্চা থেকে বৃদ্ধ যেমন থাকে, তেমনি থাকে পুরুষ থেকে মহিলা। প্রত্যেকে শিবিবের মাথায় এই শ্রাবণ মাসে জল ঢেলে একটু পুন্য অর্জন করতে চায়। তাই শত কষ্ট সহ্য করে হেঁটে শিবনিবাসে রাজরাজেশ্বরের মন্দীরে উপস্থিত হয়।

এই মাস জুড়ে শিবনিবাসের মন্দির প্রাঙ্গনে মেলা বসে। নানা রকম খেলনার সরঞ্জাম থেকে শুরু করে নাগোরদোল্লা কিছুই বাদ থাকে না। তাতেই মেতে ওঠে শিবনিবাসের বাসিন্দা থেকে নদিয়াবাসী।

সকাল ৬টা থেকে জল ঢালা শুরু হয়। কিন্তু ভক্তরা ভোর রাত থেকে লাইনে দাঁড়িয়ে পরে সাথে দুধ-গঙ্গা জলের ঘড়া নিয়ে।মহিলারা লালপাড় সাদা শাড়ি পরে ও পুরুষরা গেরুয়া পোশাক পরে। সঙ্গে কচিকাঁচারাও লাইনে দাড়িয়ে থাকে রাজরাজেশ্বরের মাথায় জল ঢালার উদ্দেশ্যে। একে একে শিবের মাথায় জল ঢালে। এই জল ঢালার পর্ব চলে বিকাল পর্যন্ত।

কোথাও কোনও সমস্যা যাতে না হয়, তার জন্য কড়া নজরদারি চালাচ্ছেন উদ্যোক্তারা। পাশাপাশি থাকে প্রশাসনিক উদ্যোগও। থাকে পুলিশ, মেডিক্যাল টিম। তবে, শুধু নদিয়া জেলার মানুষ আসে তা নয়, এই জেলার বাইরের থেকেও বহু মানুষ আসেন।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here