ঠিকাদারের বিরুদ্ধে নিম্নমানের কাজের অভিযোগ তৃণমূলের

আশিস মণ্ডল, রামপুরহাট, ২৫ সেপ্টেম্বর: ঠিকাদারদের বিরুদ্ধে নিম্নমানের কাজের অভিযোগ এতদিন করে আসছিলেন বিরোধীরা। এবার একই অভিযোগ শাসক দলের জেলা সভাপতির কাছে করলেন এক বুথ সভাপতি। একই সঙ্গে রাস্তাঘাট, পানীয় জলের সমস্যার অভিযোগ তো রয়েছেই। সেই সঙ্গে ময়ূরেশ্বর ১ নম্বর ব্লকের চারটি অঞ্চলে দলের খারাপ ফলের কারণ হিসাবে বিজেপিকে দুষলেন দলের অঞ্চল থেকে বুথ সভাপতিরা।

শুক্রবার মল্লারপুর শিববাড়ি মাঠে ময়ূরেশ্বর ১ নম্বর ব্লকের চারটি অঞ্চলের বুথভিত্তিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। বুথ ধরে ধরে দলের হার-জিতের খতিয়ান জানতে জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলের দুপুর থেকে সন্ধ্যা গড়িয়ে যায়। অনুষ্ঠানে বোলপুর সাংসদ অসিত মাল, বিধায়ক অভিজিৎ রায়, দলের জেলা সহ সভাপতি সৈয়দ সিরাজ জিম্মি, বীরভূম জেলা পরিষদের সহ সভাধিপতি নন্দেশ্বর মণ্ডল, কো-মেন্টর ধীরেন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায় উপস্থিত ছিলেন। প্রথমেই ডাকা হয় মল্লারপুর ১ নম্বর অঞ্চলকে। ওই অঞ্চল গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে বিজেপি দখল করেছে। কেন তৃণমূলের পরাজয়? অনুব্রতর প্রশ্নে সকলেই বলেন, “ইন্দ্রজিৎ দত্ত নামে এক যুবককে খুনের পর থেকে ওই এলাকায় বিজেপির প্রভাব বাড়তে থাকে। আগামী বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির প্রভাব কমবে সেই নিশ্চয়তা বুক ঠুকে কেউ দিতে পারেননি। তবে অনেকেই তাদের এলাকায় ভোট বাড়ানোর আশ্বাস দিয়েছেন। এরপরেই ডাকা হয় কানাচি গ্রাম পঞ্চায়েতকে। ওই পঞ্চায়েত এলাকায় চাষের জন্য জল না মেলায় বহু জমি পতিত থাকে বলে অনুব্রত মণ্ডলের কাছে অভিযোগ করেন বেশ কয়েকজন বুথ সভাপতি। কেউ আবার পানীয় জলের সমস্যার কথা তুলে ধরেন।

৭৬ নম্বর বুথ সভাপতি বলেন,“আমাদের ওখানে রাস্তায় ঢালাইয়ের কাজ করা হচ্ছে। কিন্তু ঢালাইয়ে সিমেন্ট দেওয়া হচ্ছে না। বালি আর পাথর দিয়ে রাস্তা করা হচ্ছে। বলতে গেলে আমাদের চোখ রাঙাচ্ছে ঠিকাদার”। এই অভিযোগ দলের বুথ সভাপতির কাছ থেকে শুনে কিছুটা হতভম্ব হয়ে পড়েন অনুব্রত। এরপরেই বলেন, “এরকম হয়ে থাকলে প্রশাসনের কাছে লিখিত অভিযোগ জানাবেন”।

বাজিপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের মোদিয়ান গ্রামের বুথ সভাপতি অভিযোগ করেন, “মাঠ মহুলা থেকে রসুলপুর গ্রামের রাস্তা খুব খারাপ। গরুর গাড়ি চলাচলেরও অযোগ্য। ছেলেমেয়েরা স্কুল, কলেজে যেতে পারে না। আগের থেকে রাস্তা এখন আরও খারাপ হয়ে গিয়েছে। অবিলম্বে রাস্তা সংস্কার করা হোক”। বিষয়টি দেখার আশ্বাস দেন অনুব্রত। ওই পঞ্চায়েতের কয়েকজন বুথ সভাপতি ফল খারাপ হওয়ার কারন হিসাবে মানুষকে বেইমান বলে কটাক্ষ করেন। বলেন, “আমাদের সমস্ত সুযোগ সুবিধা নিচ্ছেন। আর ভোটের সময় বিজেপিকে ভোট দিচ্ছেন”। সব শেষে অনুব্রত মণ্ডল সকলকে জনসংযোগ বাড়ানোর উপর জোর দেওয়ার আবেদন জানান।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here