বাজার সরানোকে কেন্দ্র করে তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর সংঘর্ষ ও বোমাবাজি, উতপ্ত খানাকুল

আমাদের ভারত, হুগলী, ১ এপ্রিল: তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর সংঘর্ষে আবারও উত্তপ্ত হয়ে উঠল হুগলীর খানাকুল। বাজার সরানোকে কেন্দ্র করে খানাকুল বালিপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের বালিপুর বাজার এলাকায় তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। এরপর শুরু হয় বোমাবাজি। ঘটনায় পুলিশ গ্রেফতার করে ২ জনকে।

লকডাউন চলাকালীন আজ হঠাৎই বালিপুর বাজারে প্রচুর ভিড় জমে যায়। তখনই তৃণমূলের এক পক্ষ বাজার সরানোর দাবি জানায়। সেই সময় তৃণমূলের অন্য গোষ্ঠী তার প্রতিবাদ করে। এই নিয়ে দুই গোষ্ঠীর মধ্যে শুরু হয় বচসা, তারপর হাতাহাতি। এরপর শুরু হয়ে যায় দু’পক্ষের মধ্যে বোমাবাজি। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন খানাকুল থানার ওসি অনিল রাজ সহ বিশাল পুলিশবাহিনী। তারা এসে পরিস্থিতি সামাল দেয়। ঘটনা স্থল থেকে পুলিশ বেশ কয়েকটি বোমা উদ্ধার করেছে তার পাশাপাশি দুটি গুলির খোলও উদ্ধার করা হয়। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, এই ঘটনায় দুজনকে আটক করা হয়েছে। ঘটনাস্থলে উত্তেজনা থাকায় এলাকায় চলছে পুলিশের টহলদারি।

তৃণমূল নেতা শেখ সাকিম জানায়, আমি বোমাবাজি করার লোক নই। লোকসভা ভোটের পর থেকে একটু একটু করে এলাকায় সংগঠন তৈরি করেছি। বালিপুর অঞ্চলের বেশ কিছু লোকজন আছে শান্ত এলাকাকে অশান্ত করার চেষ্টা করছে। খানাকুল থানা ওসি এসে দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে আমি প্রতিনিধি হিসেবে বলে দিয়েছি যে অন্যায় করবে সে সাজা পাবে। পুলিশ পুলিশের কাজ করবে যে দোষী হবে সে গ্রেফতার হবে।

অন্যদিকে বালিপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান সাবির আলী খন্দকার বলেন, লকডাউন নিয়ে প্রশাসনের সাথে একটি বৈঠক হয় সেই বৈঠকে ঠিক হয় যেহেতু বালিপুর ঘনবসতিপূর্ণ এলাকা। বাজার খুবই ছোট তাই বাজারটি স্থানান্তরিত করা হয়। এরপর সাকিমের লোকজন বাজারে এসে ঝামেলা করে। বাজারের মধ্যে বোমাবাজি করে। বেশ কয়েকজন আক্রান্ত হয়েছে। আমরা পুলিশকে জানিয়েছি। পুলিশ ব্যবস্থা নিচ্ছে।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here