নন্দীগ্রামে ঝড়ের ক্ষতিপূরণ নিয়ে দুর্নীতির জেরে ২০০ জন নেতাকে শোকজ করল তৃণমূল

আমাদের ভারত, পূর্ব মেদিনীপুর, ৫ জুলাই: আমফান ঘূর্নিঝড়ের ক্ষতিপূরণ নিয়ে কয়েকদিন ধরে নন্দীগ্রামের বিভিন্ন অঞ্চলে দফায় দফায় জনগণের বিক্ষোভের জেরে ২০০ জন নেতাকে শোকজ করল তৃণমূল কংগ্রেস।
অভিযুক্তদের মধ্যে রয়েছে গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান থেকে বুথ ও অঞ্চল কমিটির সভাপতি। দলের ভাবমূর্তি অক্ষুন্ন রাখতে পুরোটাই লোকদেখানো বলে, কটাক্ষ বিজেপির।

রাজ্যে পালাবদলের ক্ষেত্রে অন্যতম ইস্যু ছিল নন্দীগ্রামের জমি আন্দোলন। সেই নন্দীগ্রামেই ঘূর্নিঝড়ের ক্ষতিপূরণ নিয়ে শাসক দলের স্বজন পোষণের অভিযোগ। নেতা নেত্রীদের দূর্নীতির বিরুদ্ধে কয়েকদিন ধরে চলেছে বিক্ষোভ। বিক্ষোভ কোনও রাজনৈতিক দলের নয়। সাধারণ মানুষ ক্ষোভে ফুঁসছেন। রাস্তায় গাছের গুঁড়ি ফেলে পথ অবরোধ এমনকি অঞ্চল অফিসেও বিক্ষোভ হয়। এমনকি তৃণমূল পঞ্চায়েত সদস্য সহ এলাকার তৃণমূল নেতাদের বাড়িতে গিয়ে চড়াও হয়েছে সাধারণ মানুষ। এই পরিস্থিতিতে নন্দীগ্রামে দলের ভাবমূর্তি ফিরিয়ে আনতে শুদ্ধিকরণের পথে হাঁটলেন তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্ব। একাধিক গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান থেকে শুরু করে পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য এমনকি বুথ কমিটির সভাপতি, অঞ্চল কমিটির সভাপতি সহ প্রায় ২০০ জন নেতা নেত্রীকে শোকজ করেছে তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্ব। জেলা নেতৃত্বের নির্দেশে ব্লক সভাপতি মেঘনাথ পাল এই শোকজ করেছেন। ৭ দিনের মধ্যে উত্তর দিতে বলা হয়েছে। নন্দীগ্রাম ব্লক নেতৃত্বও মানছেন ঘুর্নিঝড়ের ক্ষতিপূরণ নিয়ে যথেষ্ট গড়মিল হয়েছে। যে সমস্ত নেতারা পাকাবাড়ি বা ছাদ ঢালাইযুক্ত বাড়ির মালিকদের ক্ষতিপূরণ পাইয়ে দিয়েছেন, অবিলম্বে তাদের টাকা ফিরিয়ে দিতে বলা হয়েছে। প্রায় ২০০ জন নেতা পদাধিকারীকে শোকজ করা হয়েছে।

তৃণমূলের পূর্ব মেদিনীপুর জেলা সভাপতি শিশির অধিকারী জানিয়েছেন, ২০০ জনের মধ্যে ৫৫ জন ইতিমধ্যেই টাকা ফেরত দিয়ে গেছে। দলের রাজ্যের নির্দেশ মত অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তৃণমূলের এইসব কাজ নিয়ে বিজেপির তমলুক সাংগঠনিক জেলার সহ-সভাপতি প্রলয় পাল জানিয়েছেন, তৃণমূলের শোকজ আই ওয়াস ছাড়া কিছু নয়। জনরোষ থেকে বাঁচতে শোকজ করা হয়েছে। দোষীদের দল থেকে তাড়িয়ে দেখাক সত্যিই কিছু করতে চায় তৃণমূল।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here