স্কুলে প্রার্থনার সময় আল্লা হুআকবার ধ্বনি, প্রতিবাদ করায় নবম শ্রেণির ছাত্রকে বেধড়ক মার

স্কুলে প্রার্থনার সময় আল্লা হুআকবার ধ্বনি, প্রতিবাদ করায় নবম শ্রেণির ছাত্রকে বেধড়ক মার

আমাদের ভারত, ক্যানিং, ১৯ জুলাই: স্কুলে প্রার্থনা চলাকালীন দ্বাদশ শ্রেণির কিছু ছাত্র আল্লার নামে ধ্বনি দিয়েছিল, সেই ঘটনার প্রতিবাদ করে নবম শ্রেণির ছাত্র অরূপ হালদার। আর সেই প্রতিবাদের কারণে দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্ররা বেধড়ক মারধর করে নবম শ্রেণির এই ছাত্রকে। ঘটনাটি ঘটে দক্ষিণ ২৪ পরগণার ক্যানিং থানার অন্তর্গত তালদি মোহনচাঁদ হাইস্কুলে। ঘটনায় গুরুতর জখম হয়ে বর্তমানে ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ঐ ছাত্রটি। এ বিষয়ে স্কুলের তরফ থেকে কোন ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। এমনকি ক্যানিং থানায় অভিযোগ জানাতে গেলে সেখানেও এ বিষয়ে কোনও অভিযোগ নেওয়া হচ্ছে না বলে দাবি করেছেন আক্রান্ত ছাত্র ও তার পরিবার। এই ঘটনায় যথেষ্ট নিরাপত্তা হীনতায় ভুগছেন তারা।

অভিযোগ, বৃহস্পতিবার সকালে স্কুল শুরুর সময় জাতীয় সঙ্গীত প্রার্থনা হচ্ছিল। সেই সময় দ্বাদশ শ্রেণির কিছু ছাত্র প্রার্থনা না করে ‘আল্লা হুআকবার’ ধ্বনি দিচ্ছিল। এই ঘটনার প্রতিবাদ করে অরূপ হালদার নামে নবম শ্রেণির এক ছাত্র। এরপরেই অরূপকে বেধড়ক মারধর করে রফিকুল গাজী ও আশাদুল গাজী নামে দ্বাদশ শ্রেণির দুই ছাত্র। তাদের সাথে তাদের অনুগামীরাও মারধর শুরু করে অরূপকে। স্কুলের অন্যান্য ছাত্ররা এসে উদ্ধার করে অরূপকে।

এ বিষয়ে স্কুলের প্রধান শিক্ষককে জানাতে গেলে দেখা যায় প্রধান শিক্ষক সঞ্জয় নস্কর স্কুলে আসেননি। অন্যান্য শিক্ষকরা অরূপকে চিকিৎসার জন্য ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে পাঠান। সেখানেই বর্তমানে চিকিৎসাধীন রয়েছে সে। ঘটনার পর ২৪ ঘণ্টার বেশি কেটে গেলেও স্কুলের তরফ থেকে এ বিষয়ে কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ। এমনকি এ বিষয়ে ক্যানিং থানাতেও অভিযোগ দেওয়া হয়নি বলে দাবি আক্রান্ত ছাত্রের।

প্রধান শিক্ষক সঞ্জয় নস্করকে বারে বারে এ বিষয়ে ফোন করা হলেও তিনি ফোন ধরেন নি। ঘটনার পর থেকে যথেষ্ট আতঙ্কিত অরূপ ও তার পরিবার।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

seventeen − sixteen =