রাজ্যজুড়ে চলা অশান্তি-উদ্বেগের মধ্যেই আজ আলোর খোঁজ কার্নিভালে

রাজ্যজুড়ে চলা অশান্তি-উদ্বেগের মধ্যেই আজ আলোর খোঁজ কার্নিভালে

তারক ভট্টাচার্য 

আমাদের ভারত, ১১ অক্টোবর: রাজ্যজুড়ে চলা অশান্তি, এনআরসি নিয়ে উদ্বেগের মধ্যেই এবার একমুঠো আলোর খোঁজে কাল রাত থেকেই নীল-সাদা আলোয় মুড়েছে রেড রোড। তাঁর জমানায় বাংলায় কোনও সরকারি কারখানা হয়েছে, তেমন দোষ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে কেউ দিতে পারবেন না। তবে সিপিএম, কংগ্রেস এবং বিজেপি কী কী ভুল করেছে এবং করে চলেছে, তা তিনি হুবহুর চেয়েও বেশি বলে দিতে পারেন। যে কোনও বিষয়ই হোক, বিষয়টিকে কীভাবে উৎসবের পর্যায়ে নিয়ে যেতে হয়, তা যেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের চেয়ে বেশি আর কেউ জানেন না। আজ চতুর্থবারের জন্য তাঁর এই নৈপুণ্যের সাক্ষী হবে রেড রোড।

বৃহস্পতিবারই মুখ্যমন্ত্রীকে খুশি করতে গোটা রেড সাজিয়ে তুলেছেন বিভিন্ন ডেকরেটর সংস্থার কর্মীরা। একাধিক মাথাঢাকা মঞ্চ তৈরি হয়েছে বিশিষ্ট আমন্ত্রিতদের বসার জন্য। সেই তালিকায় মুষ্টিমেয় শিল্পপতি, শিল্পী, সাহিত্যিক, কলাকুশলী এবং সাংবাদিক রয়েছেন। তাঁর এই সব কৃপাধন্যদের মধ্যে কোনস্তর কোথায় বসবে এদিন পুলিশের উপস্থিতিতে তার সুব্যবস্থা করে ফেলেছেন ডেকরেটরের কর্মীরা। সন্তোষ মিত্র স্কোয়্যারের মতো হাতেগোনা দু’একটি নামী পুজো উদ্যোক্তা কমিটি সটান জানিয়ে দিয়েছে, তারা এসব কার্নিভালের চক্করে থাকবে না। কারণ, তাদের দরকার পরে না। সেই কারণে অংশগ্রহণকারী পুজোকমিটির সংখ্যা ৮০ থেকে কমে ৭২-এ দাঁড়িয়েছে। 


তার ওপর বৃষ্টির জন্য, অসমান গড়ের মাঠের বিভিন্ন জায়গায় বৃহস্পতিবারও জল জমে ছিল। বিশিষ্টরা যাতে সেই জল দেখতে না-পান, নিরাপত্তার দোহাই দিয়ে কৌশলে সেই ব্যবস্থা করেছে প্রশাসন। গোটা রেড রোডের দু’পাশ নীল-সাদা কাপড়ে ঢেকে দেওয়া হয়েছে। তারই মধ্যে বিদেশি রাষ্ট্রদূতদের জন্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাসিমাখা কাটআউটে ইংরেজিতে বড় বড় করে লিখে দেওয়া হয়েছে, ‘বেঙ্গল মিনস বিজনেস।’ এটুকু দাবিই যেন কোটি কোটি টাকা খরচ করে আয়োজন করা শোভাযাত্রার একমাত্র প্রাপ্তি।

" class="prev-article">Previous article

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ten − one =

amaderbharat.com

Welcome To Amaderbharat.com, Get Latest Updated News. Please click I accept.