আজ পুলিশ লাথি খেয়েছে, সতর্ক না হলে কাল আপনার পোষা গরু আপনাদেরই লাথি মারবে, মমতাকে তোপ রাহুল সিনহার

গোপাল বণিক
আমাদের ভারত, ৩০ এপ্রিল: টিকিয়াপাড়ায় পুলিশকে নিগ্রহের পিছনে তৃণমূল কংগ্রেস ও রাজ্য সরকারের সাম্প্রদায়িক শাসন দায়ি। এমনই অভিযোগ করলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সম্পাদক রাহুল সিনহা। তাঁর অভিযোগ, স্রেফ শাসকদলের সাম্প্রদায়িক রাজনীতির কারণেই টিকিয়াপাড়ায় পুলিশ হাত গুটিয়ে ছিল। মার খেয়ে এলাকা ছেড়ে পালাতে বাধ্য হয়েছে। রাহুল বলেন, পুলিশের ওপর শাসকদলের রাজনীতি এবং সাম্প্রদায়িকতার খাঁড়া ঝোলে। সেই কারণেই পুলিশ চাইলেও কিছু করতে পারে না। তাই টিকিয়াপাড়াতেও কিছু করতে পারেনি। তিনি বলেন, বিশেষ বিশেষ এলাকায় আধাসেনা না নামালে পরিস্থিতি হাতের বাইরে চলে যাবে।

বুধবার সাংবাদিক বৈঠক করে টিকিয়াপাড়ার ঘটনা নিয়ে বিজেপির বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়িক রাজনীতি করার অভিযোগ করেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই অভিযোগ খণ্ডন করে রাহুল সিনহা বলেন, বিজেপি নয়, এরাজ্যে সাম্প্রদায়িক রাজনীতি করছে আসলে শাসক দল তৃণমূল। এই প্রসঙ্গে রাহুল সিনহা বলেন, ‘মুখ্যমন্ত্রী বলছেন, টিকিয়াপাড়ার ঘটনায় বিজেপি হিন্দু- মুসলমান করছে। রাহুল সিনহার বক্তব্য, বিজেপি কিছু করছে না। আপনার পুরনো বক্তব্য আমি স্মরণ করাই। আপনিই বলেছিলেন, যে গোরু দুধ দেয়, তার লাথিও সহ্য করতে হবে। টিকিয়াপাড়ার ছবি দেখেছেন? কীভাবে পুলিশকে লাথি মারা হচ্ছে? আজকে পুলিশকে লাথি মারছে, কাল আপনার পোষা গোরু আপনাদেরই লাথি মারবে, যদি এখনও সতর্ক না হন।’

সাম্প্রদায়িক রাজনীতিকে প্রশ্রয় দিয়েই রাজ্যের সর্বত্র সঠিকভাবে লকডাউন মানা হচ্ছে না। এই অভিযোগ তুলে রাজ্যে কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করার পরামর্শ দিয়েছিলেন খোদ রাজ্যপাল জগদীপ ধনকর। টিকিয়াপাড়ার ঘটনা নিয়ে বলতে গিয়ে রাহুল সিনহাও এরাজ্যে বিশেষ বিশেষ এলাকায় কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করার দাবি তুলেছেন। তিনি বলেন, ‘আজ পশ্চিমবাংলায় যে পরিস্থিতি আছে, যেভাবে লকডাউনের নামে ছেলেখেলা চলছে, যদি সরকার এখনও বিশেষ বিশেষ চিহ্নিত এলাকায় আধাসামরিক বাহিনীকে না-নামায়, তাহলে কিন্তু পরিস্থিতি আরও হাতের বাইরে যাবে। টিকিয়াপাড়ার মতো আরও এরকম দুঃখজনক ও দুর্ভাগ্যজনক ঘটনা ঘটবে।’

টিকিয়াপাড়ার ঘটনা দেশের কাছে রাজ্যের সম্মান নষ্ট করেছে। এই অভিযোগ করে রাহুল সিনহার বলেন, কয়েকটা মানুষ তাড়া করছে আর পুলিশ দৌড়ে পালাচ্ছে। কিন্তু পুলিশ রুখে দাঁড়াতে পারল না কারণ, এই রাজ্যে পুলিশের ওপর রাজনীতির খাঁড়া ঝোলে, সাম্প্রদায়িকতার খাঁড়া ঝোলে। সেই কারণে পুলিশ চাইলেও তাঁদের কিছু করার নেই। মুখ্যমন্ত্রী এতকিছুর পরও পুলিশের ওপর দায় চাপিয়ে হাত ঝেড়ে ফেলার চেষ্টা চালাচ্ছেন। পুলিশ কমিশনারকে সরিয়ে দিয়ে বোঝানোর চেষ্টা করছেন যে, ‘যত দোষ, নন্দ ঘোষ। পুলিশকে বলির পাঠা করা হচ্ছে।’ তিনি বলেন, পুলিশের হাত বেঁধে রেখেছে কে? আপনাদের সাম্প্রদায়িক শাসনব্যবস্থাই পুলিশের হাত বেঁধে রেখেছে।
সেই কারণেই পুলিশ চাইলেও টিকিয়াপাড়ায় কিছুই করে উঠতে পারেনি। রাহুল সিনহার অভিযোগ, টিকিয়াপাড়ায় পুলিশের হাত বেঁধে রেখেছিল শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের সাম্প্রদায়িক শাসন ব্যবস্থা। লকডাউনের নামে ছেলেখালা হচ্ছে। রাজ্য সরকারের এই ভূমিকায় পুলিশের মনোবল কার্যত তলানিতে ঠেকেছে বলে রাহুল সিনহার অভিযোগ।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here