ফেসবুক, ইউটিউবে ভরসা রেখেই ২১ জুলাই ‘ভার্চুয়াল সভা’ পার করার লক্ষ্য তৃণমূলের

রাজেন রায়, কলকাতা, ২০ জুলাই: আর কয়েক ঘন্টা পরেই শহীদ দিবসে মেগা ভার্চুয়াল র‌্যালিতে শামিল হতে চলেছে মা-মাটি-মানুষের সরকার। কিন্তু সেই ভার্চুয়াল পৃথিবীতে বিরোধীদল বিজেপির মতো কোনও মেগা স্ট্রিমিং অ্যাপের সাহায্য নিতে চাইছে না শাসকদল তৃণমূল। তৃণমূল শীর্ষ নেতৃত্বের দাবি, প্রত্যেক সাধারণ মানুষের হাতে মোবাইলে থাকা ফেসবুক থেকে ইউটিউবে ভরসা করেই সাধারণ মানুষের ঘরে ঘরে পৌঁছে যেতে চায় তৃণমূল।

প্রসঙ্গত, ২১ জুলাই তৃণমূলের শহীদ দিবস মানেই ধর্মতলা চত্বরে লাখো লাখো মানুষের ভিড়। বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা মিছিলে মিছিলে ছয়লাপ কলকাতা শহর। মুখ্যমন্ত্রীর ভাষণ শুনতে হুড়োহুড়ি সাধারণ মানুষের। কিন্তু মানুষের সেই প্রাণবন্ততাই কেড়ে নিয়েছে করোনা। প্রাণভয়ে এখন সকলেই গৃহবন্দি। আর ভার্চুয়াল পৃথিবী দেখেই সময় কাটছে মানুষের।

তাই সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছতে সেই ভার্চুয়াল পৃথিবীকেই হাতিয়ার করতে চাইছে শাসকদল তৃণমূল। এর আগে বিজেপির মেগা র‌্যালিতে একটি বিশেষ স্ট্রিমিং অ্যাপের সাহায্য নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু শাসক দল তৃণমূলের দাবি, রাজ্যে বিজেপি কর্মী থেকে শাসক দল তৃণমূলের কর্মী সংখ্যা অনেক বেশি। আর সাধারণ মানুষ যাতে খুব সহজে ফেসবুক পেজ ও ইউটিউবে এই সভায় অংশ নিতে পারেন, তাই সাধারণ নিয়মেই চলবে স্ট্রিমিং। সেখানে অন্য কোনও অ্যাপের সাহায্য দরকার পড়বে না। তবে ভার্চুয়াল সভার সময়ে সব জায়গায় ইন্টারনেট পরিষেবা যাতে স্বাভাবিক থাকে, সেই বিষয়ের ওপর জোর দেওয়া হচ্ছে।

অনেক দলের ক্ষেত্রেই ভার্চুয়াল সভায় দেখা যায়, তাঁরা জেলায়, গ্রামে গ্রামান্তরে দলের কথা পৌঁছে দেওয়ার জন্য একেবারে স্থানীয়ভাবে দলের নির্দেশেই এলইডি টিভি বা জায়ান্ট স্ক্রিনের বন্দোবস্ত করেন। তবে, করোনার কারণেই সেই নির্দেশিকাও এড়িয়ে যাচ্ছে তৃণমূল। দলের থেকে স্থানীয়ভাবে স্ক্রিন, প্রোজেক্টর লাগিয়ে সভার দেখানোর জন্য লোক জড়ো করার কোনও নির্দেশিকা দল জারি করেনি। তবে সঙ্গে এটাও বলা হয়েছে, কেউ যদি মনে করেন, একসঙ্গে, সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে তাঁরা সভার বক্তব্য শুনবেন, তাহলে সেটা তারা করতেই পারেন। কিন্তু দল এই স্থানীয় জমায়েত করার নির্দেশ দিয়েছে, এমনটা নয়। জানানো হয়েছে তৃণমূলের নিজস্ব ফেসবুক পেজ এবং ইউটিউব চ্যানেল ছাড়া তৃণমূল অনুগামী কিছু ফেসবুক পেইজ এবং ইউটিউব চ্যানেলে ২১ জুলাই ভার্চুয়াল সভা দেখা যাবে। জেলায় জেলায় ব্লকে ব্লকে ব্যক্তিগতভাবে শহীদ দিবস পালনের পর দুপুর ১২টা থেকে এই ভার্চুয়াল সভা শুরু হবে। অন্যান্য বারের মতই প্রথমে কিছু নেতৃবৃন্দের ভাষণের পর ভাষণ দেবেন মুখ্যমন্ত্রী।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here