নন্দীগ্রামে পঞ্চায়েত প্রধান সহ ৪ জনকে দল থেকে বহিষ্কার করল তৃণমূল

আমাদের ভারত, নন্দীগ্রাম, ১৩ অক্টোবর: দলের নির্দেশ অমান্য করে পুনরায় প্রধান নির্বাচিত হওয়ায় নন্দীগ্রামের কেন্দেমারি জালপাই গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান মনসুরা বিবি ও তার স্বামী সেখ সাহাবুদ্দিন সহ চার সদস্যকে বহিষ্কার করল নন্দীগ্রাম ব্লক তৃণমূল কংগ্রেস।

উল্লেখ্য, গত ১৫ সেপ্টেম্বর দলের নির্দেশ অমান্য করে পুনরায় প্রধান হিসেবে নির্বাচিত হন মনসুরা বিবি। এই মনসুরা বিবির বিরুদ্ধে আমফান ঘুর্নি ঝড়ে দেওয়া সরকারি ক্ষতিপূরণে গরমিল ও স্বজন পোষণ সহ একাধিক অভিযোগে তাকে দল থেকে সাসপেন্ড করে প্রধানের পদ থেকে ইস্তফা দেওয়ার নির্দেশ দেয় তৃণমূল নেতৃত্ব। সেইমতো প্রধানের পদ থেকে ইস্তফা দেয় মানসুরা বিবি। পরবর্তী কালে দলীয় ভাবে নির্দেশ দেওয়া হয় সাকিনা বিবিকে প্রধান করার। কিন্তু শেষ মুহুর্তে সাকিনা বিবি নিজে এই দায়িত্ব নিতে অস্বীকার করে। সাকিনা বিবি ওই মিটিংয়ে অনুপস্থিত থাকে। ওইদিনই পুনরায় মনসুরা বিবি প্রধান পদে পুনরায় নির্বাচিত হন। যদিও তার পেছেনে প্রধানের স্বামী সেখ সাহাবুদ্দিনের হাত আছে বলে দাবি করেন ব্লক তৃণমূল নেতৃত্ব।

আজ নন্দীগ্রাম ১ নং ব্লকের তৃণমূলের কোর কমিটির বর্ধিত বৈঠকে কেন্দেমারি জালপাই গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান মনসুরা বিবি, তার স্বামী তথা ওই গ্রাম পঞ্চায়েতের সদস্য সেখ সাহাবুদ্দিন সহ অন্য দুই সদস্য মিঠুয়ারা বিবি ও উত্তম প্রামাণিক এই মোট চারজনকে দলীয় শৃঙ্খলাভঙ্গের অভিযোগে অনির্দিষ্টকালের জন্য বহিষ্কার করা হয়।

বহিষ্কারের পর বহিস্কৃত নেতা মনসুরা বিবির স্বামী তথা পঞ্চায়েত সদস্য শেখ শাহাবুদ্দিনের প্রতিক্রিয়া, যা করেছি দলের সম্মতিতেই করেছি। উল্টে তিনি বলেন, যারা তাকে দল থেকে বহিষ্কার করেছে তারা কিছুদিনের মধ্যেই বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন। শাহাবুদ্দিন আরও অভিযোগ করেন, ব্লক সভাপতি মেঘনাথ পাল নিজে দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here