বিধানসভা ভোটে তৃণমূলকে পঞ্চাশের একটাও বেশি আসন নয়: সৌমিত্র খাঁ

আমাদের ভারত, পূর্ব মেদিনীপুর, ২১ নভেম্বর : হাওড়া, হুগলি ও মেদিনীপুর জেলার যুব মোর্চার জোনাল বৈঠক অনুষ্ঠিত হল আজ পূর্ব মেদিনীপুরের পাঁশকুড়া স্টেশন সংলগ্ন একটি গেস্ট হাউসে। আজকে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন রাজ্য যুব মোর্চার সভাপতি সৌমিত্র খাঁ, বিজেপি রাজ্য সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু, যুব মোর্চার কাঁথির অবজারভার শঙ্কুদেব পণ্ডা সহ এই তিন জেলার যুব মোর্চার নেতৃত্ব।

আগামী বিধানসভা ভোট মাথায় রেখে যুব মোর্চা ও বিজেপির বিভিন্ন রনকৌশল এই বৈঠকে আলোচনা হতে পারে বলে সূত্রের খবর। বৈঠকে যাবার আগে কোলাঘাট থেকে পাঁশকুড়া পর্যন্ত বাইক মিছিল করে বিজেপি নেতৃত্বকে নিয়ে যান কর্মী সমর্থকরা।

বৈঠকে যোগ দেওয়ার আগে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে যুবমোর্চার রাজ্য সভাপতি সৌমিত্র খাঁ বলেন, ২০২১ এর বিধানসভার ভোটে যুবমোর্চার মূল লক্ষ্য তৃণমূল কংগ্রেসকে ৫০ টি আসনের বেশি একটিও না দেওয়া। আর তার জন্য যুব মোর্চা এখন থেকে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। সৌমিত্র খাঁ বলেন, তৃণমূল কংগ্রেসে পিসি আর ভাইপো ছাড়া আর কারো কাজ আছে বলে জানি না। যত তাড়াতাড়ি রাজ্য থেকে তৃণমূল বিদায় নেবে সাধারণ মানুষের পক্ষে তত ভালো।

কলকাতায় বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের ছবির পাশে শুভেন্দু অধিকারীর ছবির পরিপ্রেক্ষিতে সায়ন্তন বসু বলেন, বিজেপি কোনওদিন কারো সাথে কারোর ছবি লাগায় না, এটা তৃণমূলের কাজ। কালীঘাট প্রাইভেট লিমিটেডের স্বেচ্ছাচারিতার বিরুদ্ধে, কাটমানি সংস্কৃতির বিরুদ্ধে, বাংলা হিটলারি শাসনের বিরুদ্ধে যদি জনগণের এই যুদ্ধে কেউ শামিল হতে চায় আমাদের দলে তাকে স্বাগত জানাই।
বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং কলকাতায় আজ সকালে বলেছেন যে, তৃণমূল কংগ্রেসের শুভেন্দু অধিকারী সহ আরো পাঁচজন তৃণমূলের সাংসদ বিজেপির পথে। এই বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে সায়ন্তন বসু জানান, কালীঘাটের দুজন ছাড়া এই দলে আর কেউ মনে হয় থাকতে চায় না। আমি কারো নাম করে বলতে চাই না। শুধু আজকেই নয় প্রতিনিয়ত অনেকে বিজেপিতে যোগদান করছে। তৃণমূল পার্টি আস্তে আস্তে ভ্যানিশ হয়ে যাবে। পিকে’কে বিহার থেকে ধার করে এনে কোনও লাভ হবে না। সাড়ে ৫০০ কোটি টাকা যদি জনগণের খাতে দিত তাহলে মানুষের উপকার হত। বিহারের বুদ্ধি নিয়ে এসে পিকে কে এনে জনগণের সাড়ে ৫০০ কোটি টাকা দিয়ে তৃণমূল কংগ্রেসের কোনও লাভ হবে না বলে আমার মনে হয়। সায়ন্তন বসু আরও জানান, নন্দীগ্রাম থেকে তৃণমূলের যাত্রা শুরু হয়েছিল। সেই নন্দীগ্রামের নদীতেই তৃণমূলের যাত্রাপথ শেষ হবে। যেখানে তৃণমূল শুরু করেছিল সেখানেই তৃণমূল শেষ হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here