কিশোরীকে অপহরণ করে বিয়ে করার চেষ্টা, উদ্ধার করল চাকদহ থানার পুলিশ

স্নেহাশীষ মুখার্জি, আমাদের ভারত, নদীয়া, ৭ মে: ১২ বছর পেরোনো এক কিশোরীকে অপহরণ করে বিয়ে করার চেষ্টা। কিশোরীর মা জানতে পেরে মেয়েকে উদ্ধারের জন্য গেলে তাদের বেধড়ক মারধর করে তাড়িয়ে দেওয়া হয়। পরে তারা পুলিশের দ্বারস্থ হন। এই ঘটনা চাকদহ থানার মদনপুরের রেরে আলাইপুর গ্রামের।

জানা যায়, চাকদাহ থানার মদনপুরের আলাইপুর গ্রামের এক কিশোরীকে অপহরণ করে রাজেন মন্ডল নামে ২২ বছরের এক যুবক। পিতৃহীন ঐ কিশোরী সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী। মা ক্যাটারিংয়ের পাতা ফেলার কাজ করেন। গত মঙ্গলবার রাজেন তাকে জোর করে অপহরণ করে চাকদহ থানার অন্তর্গত বিষ্ণুপুরের চুয়াডাঙ্গা গ্রামে নিজের বাড়িতে তোলে। সেখানে রাজেনের বাবা-মা এবং বাড়ির অন্যান্য সদস্যরা ঐ কিশোরীকে নিজের ছেলের বউ হিসেবে মেনে নেয়। সেই মতো ছেলের বিয়ের তোড়জোড় করতে থাকে। এদিকে মেয়ের খোঁজে বিভিন্ন জায়গায় যাওয়ার পর মেয়ের মা জানতে পারে তাদের পাড়ার রাজেনই তাঁর মেয়েকে উঠিয়ে নিয়ে গেছে।

সেইমতো তারা চাকদায় রাজেনের বাড়িতে গিয়ে মেয়েকে ফেরৎ চাইলে রাজেন এবং তার পরিবার ওই কিশোরীর পরিবারের লোকদেরকে মারধর করে বলে অভিযোগ। এরপর মেয়ের বাড়ি থেকে থানার দ্বারস্থ হয়। অবশেষে বৃহস্পতিবার রাতে ঐ কিশোরীকে উদ্ধার করে পুলিশ।

কিশোরীর মার অভিযোগ, মেয়ে জন্মদিনে খেতে গেছিল। সেখান থেকে রাজেন ওকে জোর করে তুলে নিয়ে যায়। তারপর গতকাল আমরা আমার মেয়ের খোঁজ পাই। আজকে সকাল দশটার সময় ওদের বাড়ি যাই। আমাদেরকে ওরা মারধর করে তাড়িয়ে দেয়। আমার মেয়েকে ওরা জোর করে তুলে নিয়ে গিয়ে আটকে রেখেছিল।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, আপাতত ঐ কিশোরীর কাছ থেকে লিখিত বয়ান নিয়ে ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে। পরবর্তীতে মামলা শুরু হলে আবার ওকে আমরা তদন্তের স্বার্থে ডেকে পাঠাবো।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here