মুখ্যমন্ত্রীর করোনা ত্রাণ তহবিলে এক লক্ষ টাকা দান করলেন অশোকনগরের দুই শিক্ষিকা

সায়ন ঘোষ, হাবড়া, ১ এপ্রিল: একই দিনে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের করোনা ত্রাণ তহবিলে মোট এক লক্ষ টাকা দান করেন অশোকনগরের বাসিন্দা দুই শিক্ষিকা। বুধবার উত্তর ২৪ পরগনার অশোকনগরের বাসিন্দা দুই শিক্ষিকার এমন ভূমিকায় মুগ্ধ এলাকার বাসিন্দারা।

গোপালনগর গিরিবালা বালিকা বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা অশোকনগর ১৪ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা রূপালী দেবরায় এদিন প্রথম ৫০ হাজার টাকা দান করেন স্থানীয় বিধায়ক ধীমান রায়ের কাছে। তার হাত ধরে এই টাকা মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে পৌঁছে যাবে। পরিবারের তরফে জানানো হয়েছে, দীর্ঘদিন ধরেই তিনি বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত।

রূপালী দেবী জানান, তিনি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কর্মদক্ষতা দেখে মুগ্ধ এবং তার করোনা মোকাবিলায় প্রচেষ্টায় অনুপ্রাণিত হয়ে তিনি তাঁর সঞ্চিত ৫০ হাজার টাকা দান করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

অন্যদিকে অশোকনগর কল্যাণগড় পুরসভার ১১ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষিকা মুক্তা বিশ্বাস তাঁর স্বামীর দুমাসের পেনশনের প্রাপ্য ৫০ হাজার টাকা দান করলেন মুখ্যমন্ত্রী ত্রাণ তহবিলে। স্বামী অচ্যুৎ বিশ্বাস বেশ কিছু বছর আগে মারা গিয়েছেন। একমাত্র ছেলে মৃত্যুঞ্জয় তাকে অনুপ্রাণিত করেন। মুক্তা দেবী জানান, তিনি মুখ্যমন্ত্রীর হাত শক্ত করার জন্য করোনা মোকাবিলায় টাকাটি দান করেছেন। পাশাপাশি তিনি জানান, একজন বয়স্ক মানুষ হিসেবে তিনিও চান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যেন সুস্থ সবল থাকেন এবং নিজের দিকে নজর রাখেন। তাহলেই রাজ্যবাসীও ভালো আর নিরাপদ থাকবেন। তাঁর অনুদান তিনি আজ অশোকনগরের বিধায়কের হাতে তুলে দেন। স্বভাবতই দুই শিক্ষিকার ভূমিকায় খুশি অশোকনগরের বিধায়ক বিধান রায়।

অশোকনগরের বিধায়ক জানান, এঁরা সকলেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে এই দান করেছেন। তিনি আশা প্রকাশ করেন আরও মানুষ এগিয়ে আসবেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত শক্ত করবেন।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here