১৫ অক্টোবর থেকে ধাপে ধাপে খোলা যেতে পারে স্কুল,তবে সিদ্ধান্ত নেবে রাজ্য সরকার, গাইডলাইনে জানালো কেন্দ্র

আমাদের ভারত,৩০ সেপ্টেম্বর:১৫ অক্টোবরের পর থেকে রাজ্য সরকার যদি চায় তাহলে ধাপে ধাপে স্কুল খুলতে পারে। বুধবার আনলক ফাইভের গাইডলাইন প্রকাশ করে এমনটাই জানিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক।

গাইডলাইনে বলা হয়েছে রাজ্য সরকার স্কুল খুলতে চাইলে সেই স্কুলের সঙ্গে আলোচনা করতে হবে।সেখানকার সামগ্রিক পরিস্থিতি বিচার বিশ্লেষণ করতে হবে। কথা বলতে হবে অভিভাবকদের সঙ্গে। এছাড়াও কতগুলি শর্ত মেনে বা বিষয় বিবেচনা করে স্কুল খোলা হবে।

কেন্দ্রের দেওয়া নির্দেশ গুলি হল, অনলাইনে পঠন-পাঠন চালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করাই ভালো। যদি একান্ত অসুবিধা হয় , তবেই স্কুল খোলার কথা বিবেচনা করা যেতে পারে। যেখানে অনলাইনে স্কুল পড়াশোনা স্কুল চালাচ্ছে এবং যেখানে কিছু সংখ্যক ছাত্র-ছাত্রী স্কুলে যাওয়ার পরিবর্তে অনলাইন ব্যবস্থাতেই স্বাচ্ছন্দ তাদের সেই সুযোগ দিতে হবে।

বাবা-মা তথা অভিভাবকের লিখিত অনুমতি নিয়ে তবেই ছাত্রছাত্রীরা স্কুলে যেতে পারবে। স্কুলের উপস্থিতির হার নিয়ে কোনোরকম জোরাজুরি করা যাবে না। প্রতিটি রাজ্যকে স্কুল খোলার জন্য স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিউরের খসড়া তৈরি করতে হবে। কোভিড স্বাস্থ্যবিধি স্পষ্ট করে জানাতে হবে। তার জন্য কেন্দ্রীয় শিক্ষা মন্ত্রকের সঙ্গে আলোচনা করতে হবে। প্রতিটি স্কুলকে বাধ্যতামূলকভাবে ওই স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিউর মেনে চলতে হবে।

এই গাইডলাইনের পরে স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন উঠেছে পশ্চিমবঙ্গ কি করবে। এই গাইডলাইন প্রকাশের আগেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, “এখনও স্কুল খোলার মতো পরিস্থিতি তৈরি হয়নি। কালীপুজোর আগে সেই ব্যাপারে ভাবনা চিন্তা করব। তবে তিনি জানিয়েছেন স্কুল খোলার পর কি কি বিধি মেনে ক্লাস শুরু হবে, শুরুতে কোন কোন ক্লাস চালু হবে, ইতিমধ্যেই সে ব্যাপারে আলোচনা চলছে। এমনিতেই আমাদের রাজ্যে ১৫ অক্টোবর থেকে স্কুল খেলার পরিস্থিতি থাকবে না। কারণ ১৫ অক্টোবর মানে ততদিনে প্রায় পুজো শুরু হয়ে যাবে। ২২ অক্টোবর ষষ্ঠীপুজো শেষে ২৬ অক্টোবর আর কালীপুজোর ১৪ নভেম্বর। তার পরে রয়েছে ভাইফোঁটা। ফলে তার আগে স্কুল খুলবে বলে মনে হচ্ছে না। তবে কেন্দ্র সরকারের এই গাইডলাইনের দেখার পর রাজ্য সরকার এই বিষয়ে কি সিদ্ধান্ত তার দিকে তাকিয়ে সবাই।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here