বিধানসভাকে পার্টি অফিস হিসাবে ব্যবহার, সব্যসাচীর তৃণমূলে যোগদানে বিস্ফোরক শুভেন্দু

রাজেন রায়, কলকাতা, ৭ অক্টোবর: বিধানসভার মধ্যে আচমকাই সব্যসাচী দত্তের তৃণমূলে যোগদান নিয়ে বিস্মিত হয়ে গেছিলেন অনেকে। আর এই ধরনের ঘটনা নিয়ে কড়া প্রতিক্রিয়া বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীর। তাঁর দাবি, এ ধরনের ঘটনা ভারতবর্ষের কোনও বিধানসভা প্রত্যক্ষ করেনি। যেখানে বিধানসভাকে পার্টি অফিস হিসেবে ব্যবহার করেছে শাসক দল।

২ বছর বিজেপি-তে থেকে ফের তৃণমূলে ফিরলেন সব্যসাচী দত্ত। দুর্গা পুজোর আগেই সব্যসাচীর পদ্ম প্রেম শেষ হয়ে যাবে তা আশা করতে পারেনি গেরুয়া শিবির। বিরোধী নেতা শুভেন্দু অধিকারী বলেন, বিধানসভা আজ বিরল ও ব্যতিক্রমী ঘটনার সাক্ষী থাকল। কেন এমন বললেন নন্দীগ্রামের বিজেপি বিধায়ক?

লক্ষ্মীবারে মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের শপথ গ্রহণের দিনই তৃণমূলে যোগ দিলেন প্রাক্তন বিধায়ক সব্যসাচী দত্ত। এদিন মমতার শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠান শেষ হতেই তাঁর অনুমতিক্রমে (পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের দাবি অনুযায়ী) বিধানসভাতেই পার্থ চট্টোপাধ্যায় ও ফিরহাদ হাকিমের হাত থেকে ঘাসফুলের পতাকা তুলে নেন মুকুল ঘনিষ্ঠ সব্যসাচী। আর এ নিয়েই তীব্র কটাক্ষ করে শুভেন্দু অধিকারী টুইটারে লিখেছেন, “আজ পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা একটি বিরল এবং ব্যতিক্রমী ঘটনার সাক্ষী থাকল। যা ভারতের অন্য কোনও বিধানসভা কখনও দেখেনি বা প্রত্যক্ষও করেনি।বিধানসভাকে পার্টি অফিস হিসাবে ব্যবহার করা হল এদিন। ক্ষমতাসীন দল বিধানসভাকে নিজেদের পার্টি অফিস হিসাবে ব্যবহার করল। এটা হাস্যকর। বিধানসভার মধ্যে কাউকে দলে যোগদান করানো প্রকারন্তরে বিধানসভারই বদনাম করা।”

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here