হাইকোর্টের নির্দেশকে অমান্য কেন? পুরভোট মামলায় অবমাননার নোটিস কমিশনকে

রাজেন রায়, কলকাতা, ১৯ জানুয়ারি: ২২ জানুয়ারি বিধাননগর, আসানসোল, চন্দননগর ও শিলিগুড়ি, রাজ্যে ৪ পুর নিগমে ভোট হওয়ার কথা ছিল। করোনার কারণে পুরভোট পিছিয়ে দিয়েছে রাজ্য নির্বাচন কমিশন। ২২ জানুয়ারির পরিবর্তে নির্বাচন হবে ১২ ফেব্রুয়ারি। ভোট আরও খানিকটা পিছিয়ে দেওয়া হল না কেন? প্রশ্ন তুললেন জনস্বার্থ মামলাকারী বিমল ভট্টাচার্য।

পুরভোট মামলাকারী বিমল ভট্টাচার্য এদিন জানিয়েছেন, রাজ‍্যে নির্বাচন কমিশন হাইকোর্টের নির্দেশ অবমাননা করেছেন। কারণ যেখানে হাইকোর্ট চার থেকে ছয় সপ্তাহ ভোট পিছোনোর কথা বলেছিল সেখানে রাজ্য নির্বাচন কমিশন পুর ভোট চার থেকে ছয় সপ্তাহ পিছোয়নি। এই পরিস্থিতিতে কেন রাজ্য নির্বাচন কমিশন কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশ মানল না? তাই আগামী সাত দিনের মধ্যে রাজ্য নির্বাচন কমিশন সঠিক উত্তর না জানালে রাজ‍্য নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে হাইকোর্ট অবমাননা মামলার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন মামলাকারী।

হাইকোর্টের নির্দেশকে কেন মান্যতা দেওয়া হল না সেই প্রশ্ন তুলে নির্বাচন কমিশনকে নোটিস ধরানো হয়েছে।
কমিশনকে আগামী সাত দিনের মধ্যে নোটিসের জবাব দিতে বলা হয়েছে। উত্তর না পেলে মামলার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন বিমল ভট্টাচার্য। নোটিসে জানতে চেয়েছেন কোন যুক্তিতে তিন সপ্তাহ ভোট পিছনো হল? কারণ হাইকোর্টের পরামর্শ ছিল ন্যূনতম চার থেকে ছয় সপ্তাহ ভোট পিছনোর। হাইকোর্টের নির্দেশের পরেও কেন তাকে মান্যতা দেওয়া হল না? এই প্রশ্নগুলি তুলে নোটিস পাঠানো হয়েছে রাজ্য নির্বাচন কমিশনকে। কমিশনের যুক্তি কী রয়েছে সেই বিষয়ে সবিস্তারে জানতে চাওয়া হয়েছে নোটিসে।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here