“নর্মদা বাঁধ নির্মাণ বিরোধীরা কেন ভারত জোড়ো পদযাত্রায়? ভোট চাওয়ার নৈতিক অধিকার কি আছে কংগ্রেসের?” প্রশ্ন তুললেন মোদী

আমাদের ভারত, ২১ নভেম্বর: কংগ্রেসের অহঙ্কার এখনো যায়নি। তাই ওরা আমার ক্ষমতা নিয়ে খোঁচা দিচ্ছে। গুজরাটে বিধানসভা ভোটের প্রচারে গিয়ে কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধীকে এভাবেই কটাক্ষ করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সোমবার বিজেপির এক নির্বাচনী সভা থেকে তিনি প্রশ্ন তোলেন, নর্মদা বাঁধ নির্মাণ বিরোধী আন্দোলনের নেত্রী উন্নয়ন বিরোধী মেধা পাটকারকে কেন ভারত জোড়ো যাত্রায় দেখা যাচ্ছে?

রবিবার কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী বলেন, নরেন্দ্র মোদীর কত ক্ষমতা বিধানসভা ভোটে গুজরাতের মানুষ তা বুঝিয়ে দেবে। সোমবার সেই মন্তব্যের পাল্টা জবাব দেন মোদী। তিনি বলেন, কংগ্রেস নেতাকে দেখা যাচ্ছে এক মহিলার সঙ্গে পদযাত্রা করতে। ইনি সেই মহিলা যিনি তিন দশক নর্মদা বাঁধ প্রকল্প আটকে রেখে দিয়েছিলেন।

নর্মদা প্রসঙ্গ টেনে এনে জনতার উদ্দেশ্যে মোদী বলেছেন, যারা নর্মদা বাঁধ প্রকল্পের বিরুদ্ধে তাদের ভোট দেবেন না। এই প্রকল্পকে গুজরাটের জীবনরেখা বলে উল্লেখ করেছেন তিনি। একইসঙ্গে গুজরাটের মানুষের উদ্দেশ্যে তার পরামর্শ কংগ্রেস ভোট চাইতে এলেই বলুন, আপনাদের নেতা এমন একজনের সঙ্গে হাঁটছেন যিনি নর্মদা প্রকল্পের বিরুদ্ধে।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী প্রশ্ন তুলেছেন, রাহুল গান্ধীর কি আদৌ ভোট চাওয়ার নৈতিক অধিকার রয়েছে? যখন তিনি এমন এক মহিলার সঙ্গে হাঁটছেন যিনি তিন দশক নর্মদা প্রকল্পকে আটকে রেখেছিলেন সৌরাষ্ট্রকে জল থেকে বঞ্চিত রেখেছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, নর্মদা নদীর উপর সর্দার সরোবর বাঁধ তৈরিতে দেরি হয়েছে, কারণ অনেকেই এই কাজকে বন্ধ করে দেওয়ার চেষ্টা করেছিলেন। কচ্ছ এবং কাথিয়াবাড়ি শুষ্ক অঞ্চলের তৃষ্ণা মেটাতেই নর্মদা বাঁধ ছিল একমাত্র সমাধান। অথচ নর্মদা বিরোধী অ্যাক্টিভিস্ট আইনি জটিলতা তৈরি করে তিন দশক ধরে প্রকল্পটিকে আটকে রেখেছিলেন। এমনকি গুজরাট সম্পর্কে তারা এমন বদনাম ছড়িয়ে দিয়েছিলেন যে বিশ্ব ব্যাঙ্ক তাদের ফান্ড বন্ধ করে দিয়েছিল।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here