ভারতীয়দের জন্য প্রত্যাহার করা হোক নয়া গোপনীয়তা নীতি , হোয়াটসঅ্যাপকে চিঠি কেন্দ্রের

আমাদের ভারত, ২০ জানুয়ারি:হোয়াটসঅ্যাপের নতুন প্রাইভেসি পলিসি নিয়ে বিতর্কের ঝড় উঠেছে। আর গ্রাহকদেরকে ক্ষোভের মুখে পড়ে আপাতত নতুন ডাটা শেয়ারিং বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে হোয়াটসঅ্যাপে। আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে নতুন নীতি চালু করার কথা ছিল। কিন্তু আপাতত তার তিন মাস স্থগিত রাখা হয়েছে। নয়া গোপনীয়তা নীতি নিয়ে হোয়াটসঅ্যাপের সিইও উইল ক্যাথকার্টকে চিঠি দিয়ে মোদী সরকারের তরফে জানানো হয়েছে, ভারতীয় গ্রাহকদের জন্য নতুন নীতি বন্ধ করা হোক। দেশের গ্রাহকদের জন্য হোয়াটসঅ্যাপে তথ্য সুরক্ষা ও নিরাপত্তা কতটা সেটাও সবিস্তারে জানানো হোক।

চিঠিতে মোদি সরকারের বার্তা ভারতীয় ব্যবহারকারীদের তথ্যের গোপনীয়তা এবং ডেটা সংক্রান্ত সুরক্ষাকে নিশ্চিত করুন। ভারতীয় ব্যবহারকারীদের জন্য ম্যাসেজিং পরিষেবা সংক্রান্ত প্রাইভেসি পলিসি সাম্প্রতিক নয়া শর্তগুলি প্রত্যাহার করুন।

গত ১১ জানুয়ারি থেকে হোয়াটসঅ্যাপের নয়া প্রাইভেসি পলিসি সংক্রান্ত বিষয়টি কেন্দ্র নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছে বলেও চিঠিতে জানানো হয়েছে। হোয়াটসঅ্যাপে সুরক্ষানীতি গোপনীয়তা সংক্রান্ত নীতি এনক্রিপশন সংক্রান্ত নীতি জানতে চেয়েছে কেন্দ্রীয় তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রক। কেন্দ্রে তরফে হোয়াটসঅ্যাপ কর্তৃপক্ষের কাছে নয়া নীতিতে ডেটা শেয়ারিং প্রটোকল এবং ব্যবসায়িক বার্তালাপ সংক্রান্ত পরিবর্তিত নীতি সম্পর্কে বিশদ তথ্য জানতে চাওয়া হয়েছে। এছাড়াও তথ্য ফেসবুকসহ অন্য সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে সঙ্গে ডেটা আদান-প্রদানে প্রটোকল বিজনেস একাউন্ট এর সঙ্গে চ্যাট সংক্রান্ত তথ্য প্রকাশের ক্ষেত্রে অনুসৃত নীতিও জানতে চাওয়া হয়েছে। ভারতীয় ব্যবহারকারীদের থেকে পাওয়া তথ্য শেয়ার করার ক্ষেত্রে সম্মতি নেওয়ার বিষয়টি এবং অন্য দেশের ব্যবহারকারীদের ক্ষেত্রে হোয়াটসঅ্যাপের গোপনীয়তা সংক্রান্ত নীতি-নিয়ম কয়েকটি প্রশ্নের উত্তর চেয়েছে কেন্দ্র।

হোয়াটসঅ্যাপ নিজের নয়া নীতির ব্যাপারে বলেছিল, এই আপডেট গ্রাহকরা এড়িয়ে যেতে পারবেন না।প্রাইভেসি পলিসির সাথে একমত হলে তবেই একাউন্ট থাকবে। নাহলে অ্যাকাউন্ট থেকে বেরিয়ে যেতে হবে। এরপরই বিতর্কের ঝড় ওঠে। হোয়াটসঅ্যাপ ছেড়ে অনেকেই টেলিগ্রাম বা সিগন্যাল অ্যাপে চলে যান।

শেষে চাপের মুখে পরে বিবৃতি দিয়ে হোয়াটসঅ্যাপ জানায় তারা ফেসবুকের সঙ্গে ডাটা শেয়ার করে না। এমনকি গ্রাহকদের ব্যক্তিগত কথোপকথনে কখনো আড়িপাতে না। হোয়াটসঅ্যাপ গ্রাহকদের কোন কন্টাক্ট নাম্বার ফেসবুকের সঙ্গে শেয়ার করা হয় না। মেসেজে কোন লোকেশন লিখলে সেটা হোয়াটসঅ্যাপ জানতে পারে না। গ্রাহকদের অবস্থান কোথায় সে ব্যাপারে নাক গলানো হয় না। এমনকি হোয়াটসঅ্যাপগ্রুপে সব মেসেজই গোপন থাকে। হোয়াটসঅ্যাপ জানায় এখনই প্রাইভেসি পলিসি আপডেট করা হচ্ছে না। সব বিভ্রান্তি মিটলে তবেই সেই প্রক্রিয়া শুরু হবে। মানুষের ভ্রান্তি সংশোধন করে আগামী ১৫মে থেকে নতুন আপডেট চালু করা হতে পারে। প্রাইভেসি পলিসি না মানলে অ্যাকাউন্ট ডিলিট করা হবে না বলেও আশ্বাস দিয়েছে হোয়াটসঅ্যাপ।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here