শুভেন্দু অধিকারীর সুস্থতা কামনায় মন্দিরে মন্দিরে যুবক-যুবতীদের পুজোপাঠ

জে মাহাতো, আমাদের ভারত, ঝাড়গ্রাম, ২৮ সেপ্টেম্বর: জঙ্গলমহলের সাতশো অনুগামী মন্দিরে পুজো পাঠ এবং দরগা ও মাজারে চাদর চড়িয়ে রাজ্যের পরিবহনমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীর দ্রুত সুস্থতা কামনা করছেন। পরিবহনমন্ত্রী সুস্থ হয়ে যতদিন না বাড়ি ফিরছেন ততদিন এই পুজো পাঠ চলতে থাকবে বলে ঝাড়গ্রামের স্নেহাশীষ ভকত এবং খড়্গপুরের মুনমুন বণিক জানিয়েছেন। শুভেন্দু অধিকারী এবং তার মা গায়ত্রী দেবীর আরোগ্য কামনায় গুপ্তমণি মন্দিরে পুজো দিতে দেখা গেছে সাতশো যুবক যুবতীকে। স্নেহাশীষ ও মুনমুনের নেতৃত্বে তারা মন্দিরে গণপুজো দিয়েছেন। গুপ্তমনি মন্দিরে একসঙ্গে এই বিপুল সংখ্যক যুবক-যুবতীকে দেখে রাজনৈতিক মহলে শুভেন্দু অধিকারীর সামাজিক জনপ্রিয়তা নিয়ে চর্চা শুরু হয়ে যায়।

ঝাড়গ্রামের এক তৃণমূল নেতা বলেন, এই ঘটনা প্রমাণ করে, হাজার হাজার যুবক যুবতী তৃণমূলের কর্মী হলেও তারা অনেক বেশি শুভেন্দুর অনুগামী। তিনি বলেন, এতদিন শুভেন্দুর অনুগামীদের সোশ্যাল মিডিয়ার পাতায় দেখেছি। কিন্তু বাস্তবটা দেখলাম শুভেন্দু অধিকারী অসুস্থ হওয়ার পর। দেখলাম দাদার  মঙ্গল কামনায় পুজো প্রার্থনায় জঙ্গলমহল থেকে সমুদ্র কিংবা উত্তরবঙ্গ থেকে সমগ্র দক্ষিণ বঙ্গের যুবক- যুবতীদের উপচে পড়া ভিড়।

স্নেহাশীষ ভকত জানান, জঙ্গলমহলের অগ্নি যুবক  শুভেন্দুদা দ্রুত সুস্থ হয়ে যাতে আমাদের মধ্যে ফিরে আসেন  সেজন্য গুপ্তমণি মন্দিরে মা গুপ্তমণিকে একশো আটটি জবা ফুল ও একশ একটি নারকেল দিয়ে পূজা দিয়েছি। এই পুজোর ফুল ও প্রসাদ দাদার কাছে পাঠানো হচ্ছে।

খড়্গপুরের মুনমুন বণিক জানিয়েছেন, শুধু এরাজ্যে নয় ওড়িশার জগন্নাথ মন্দিরে এবং উত্তরপ্রদেশের বৃন্দাবন ধামেও দাদার নামে পুজো দেওয়া হয়েছে।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here