বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হওয়ার ঘটনা রুখতে মৌসুমীর অঙ্গীকারের পাশে এলাকাবাসী

আমাদের ভারত, কলকাতা, ৩ জুলাই: হরিদেবপুর, নারকেলডাঙ্গা, উলুবেড়িয়ার মতো বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হওয়ার ঘটনা রুখতে বস্তিতে বস্তিতে বস্তিতে সচেতনতা প্রচার করলেন ৯৩ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর মৌসুমী দাস।

মাইক ও লিফলেট নিয়ে নিজেই সচেতনতা কর্মসূচি নেন কাউন্সিলর। রবিবার দুপুরে মাইক নিয়ে প্রচার করেন হুকিং বিরোধী ও বৃষ্টিতে বিদ্যুতের খুঁটি স্পর্শ না করতে। লেকগার্ডেন্স সুপার মার্কেটের পাশে মোল্লাহাটি বস্তি দিয়ে প্রচার শুরু হয়। পরে মসজিদ পাড়া, যোধপুর কলোনি, রহিম ওস্তাগর রোডের বস্তিতেও সচেতনতা প্রচার করেন। লিফলেট বিলি করেন কাউন্সিলর ও পুরসভার লাইটিং বিভাগের আধিকারিকরা।

মৌসুমী দাসের নেতৃত্বে ঘরে ঘরে লিফলেট বিলি করেন মহিলাদের বিশেষ টিম। একই সঙ্গে বিদ্যুৎ বিভ্রাট হলে বা হুকিং হলেই একটি বিশেষ নম্বর (৭০৪৪৪৪৭০৬০) চালু করে হোয়াটসঅ্যাপে অথবা ফোন করার আবেদন জানান পুরমাতা।

প্রশ্নের উত্তরে মৌসুমী জানান, “লিফলেট বিলি করতে গিয়ে দেখলাম বস্তিতে অনেকে কেবল লাইনের উপরে জামাকাপড় মেলছেন। এটা ভয়ানক বিপজ্জনক, তাই সবাইকে নিষেধ করলাম। স্থানীয় বাসিন্দারা যদি নিজেরাও উদ্যোগী হয়ে এ রকম নিরন্তর সচেতনতার চেষ্টা করেন, প্রত্যেকে যদি সতর্ক থাকেন, তাহলে বিপদের আশঙ্কা অনেকটাই কমে যাবে। সবাইকে মনে রাখতে হবে, জীবন খুব মূল্যবান।”

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি হরিদেবপুরে ৪১ পল্লীর কাছে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মর্মান্তিক মৃত্যু হয় ১২ বছরের কিশোরের। তাঁর নাম নীতিশ যাদব। এর জের কাটতে না কাটতে শনিবার সন্ধ্যায় নারকেলডাঙায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে  ১৩ বছরের বালকের মৃত্যু হয়। এর কয়েক ঘন্টা বাদেই উলুবেড়িয়ার মারা যায় সুব্রত মণ্ডল (২৫) নামে এক যুবক। ৩২ নম্বর ওয়ার্ডে তাঁর বাড়ির কিছুটা দূরে দক্ষিণ গঙ্গারামপুরের কাছে রাস্তার উপরে বিদ্যুতের তার ছিঁড়ে পড়েছিল। তা বুঝতে পারেননি। বিদ্যুতের ছেঁড়া তার সাইকেলের চাকায় জড়িয়ে গেলে রাস্তায় পড়ে যান সুব্রত। সঙ্গে সঙ্গে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে তাঁর মৃত্যু হয়। মিনিট ২০ পরে স্থানীয়দের উদ্যোগে এলাকার ইলেকট্রিক অফিস থেকে মেন সুইচ বন্ধ করা হয়। 

কলকাতা পুরসভার মেয়র পারিষদ, আলো, সন্দীপ রঞ্জন বক্সী জানান, বাতিস্তম্ভ এবং ফিডার বক্সের তার খোলা থাকলে সেগুলি মেরামত হয়েছে। নজরদারি আরও বাড়ানো হচ্ছে। কাউন্সিলারদেরও নিজেদের এলাকায় নজরদারি করতে বলা হয়েছে। যেখানেই এই ধরনের ছবি ধরা পড়বে তড়িঘড়ি আমাদের জানান। দ্রুত সেগুলি ঠিকঠাক করেতে হবে। হরিশ মুখার্জি রোড, এস পি মুখার্জি রোড, দেশপ্রাণ শাসমল রোড, কলুটোলা স্ট্রিট, ডালহৌসি, চিত্তরঞ্জন অ্যাভিনিউ, এ জে সি বোস রোড, নির্মলচন্দ্র স্ট্রিট, কলেজ স্ট্রিট, পার্ক স্ট্রিট, চৌরঙ্গি, শরৎ বোস রোড, এলগিন রোড, ডি এল খান রোড, রাজভবন, তারাতলা, বেলেঘাটা, ফুলবাগান, মানিকতলা, কাঁকুড়গাছি সহ একাধিক এলাকায় কাজ চলছে।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here